০৮:৪৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ভারত-নেপালের সম্পর্ক অতুলনীয়: মোদী

নেপালের সাথে ভারতের সম্পর্ক ‘অতুলনীয়’ বলে মন্তব্য করেছেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। পূর্বেই খবর পাওয়া গিয়েছিলো, বুদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষ্যে প্রতিবেশী দেশ নেপালের প্রধানমন্ত্রী শের বাহাদুর দেউবার আমন্ত্রণে লুম্বিনী সফরে যাচ্ছেন মোদী। সফরের প্রাক্বালে রবিবার দেশবাসীর উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে এমন অভিমত ব্যক্ত করেন ভারত সরকারের সুপ্রিমো।

ভারত-নেপালের সাংস্কৃতিক ও ঐতিহাসিক সম্পর্কের উপর জোর দিয়ে মোদী বলেন, “নেপালের সাথে আমাদের সম্পর্ক অতুলনীয়। ভারত ও নেপালের মধ্যে সভ্যতাগত এবং জনগণের মধ্যে যোগাযোগ আমাদের ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের স্থায়ী প্রতিচ্ছবি গঠন করেছে। আমার সফরের উদ্দেশ্য হল, এই সময়-সম্মানিত সংযোগগুলো উদযাপন করা এবং আরও গভীর করা, যা বহু শতাব্দী ধরে গড়ে উঠেছে এবং আমাদের মিলনের দীর্ঘ ইতিহাসে রেকর্ডেড রয়েছে।”

এর আগে এক বিবৃতিতে, ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, নেপালের প্রধানমন্ত্রী শের বাহাদুর দেউবার আমন্ত্রণে দেশটিতে সফর করবেন মোদী। এসময়, লুম্বিনি প্রদেশে নেপাল সরকারের তত্ত্বাবধানে লুম্বিনি ডেভেলপমেন্ট ট্রাস্ট আয়োজিত বুদ্ধ পূর্ণিমায় যোগ দেয়ার কথা রয়েছে তাঁর। একই সাথে পবিত্র মায়াদেবী মন্দিরেও প্রার্থনা করতে যাবেন তিনি।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ার পর পঞ্চমবারের মত নেপাল সফরে যাচ্ছেন বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রের সরকার প্রধান। জানা গিয়েছে, সফরকালে লুম্বিনি সন্ন্যাস অঞ্চলের মধ্যে আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ কনফেডারেশন নয়াদিল্লির অন্তর্গত একটি প্লটে বৌদ্ধ সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের জন্য একটি কেন্দ্র নির্মাণের জন্য ‘শিলান্যাস’ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন মোদী।

বেশ কয়েকটি মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, নরেন্দ্র মোদী নেপাল সফরে যেতে গিয়ে প্রথমে ভারতের কুশিনগর বিমানবন্দরে নামবেন। সেখান থেকে হেলিকপ্টারে তিনি লুম্বিনীতে একটি বিশেষ হেলিপ্যাডে নামবেন। সেখানে তিনি ভারতের সহায়তায় তৈরি একটি ‘বিহারের’ ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন নেপালের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে।

এদিকে, নেপালের সঙ্গে একাধিক বিষয়ে ভারতের মতভেদ রয়েছে। বিভিন্ন বিষয়ে ভারত ও নেপালের মধ্যে সমঝোতারও অভাব দেখা গিয়েছে। এবার নেপাল চাইছে যাতে ভারতের সঙ্গে লুম্বিনী ও নেপালগঞ্জ সংযুক্ত করা যায়। তবে নেপালের কাছে গোরক্ষপুরে ভারতের প্রতিরক্ষা ঘাঁটি রয়েছে বলে তাতে বাধ সেধেছে দিল্লি। বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সফরে আলাদা করে কোনও প্রসঙ্গ উঠে আসে কি না, সেদিকে তাকিয়ে দেশ। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

ভারত-নেপালের সম্পর্ক অতুলনীয়: মোদী

প্রকাশ: ০৩:৪৮:৩৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৫ মে ২০২২

নেপালের সাথে ভারতের সম্পর্ক ‘অতুলনীয়’ বলে মন্তব্য করেছেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। পূর্বেই খবর পাওয়া গিয়েছিলো, বুদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষ্যে প্রতিবেশী দেশ নেপালের প্রধানমন্ত্রী শের বাহাদুর দেউবার আমন্ত্রণে লুম্বিনী সফরে যাচ্ছেন মোদী। সফরের প্রাক্বালে রবিবার দেশবাসীর উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে এমন অভিমত ব্যক্ত করেন ভারত সরকারের সুপ্রিমো।

ভারত-নেপালের সাংস্কৃতিক ও ঐতিহাসিক সম্পর্কের উপর জোর দিয়ে মোদী বলেন, “নেপালের সাথে আমাদের সম্পর্ক অতুলনীয়। ভারত ও নেপালের মধ্যে সভ্যতাগত এবং জনগণের মধ্যে যোগাযোগ আমাদের ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের স্থায়ী প্রতিচ্ছবি গঠন করেছে। আমার সফরের উদ্দেশ্য হল, এই সময়-সম্মানিত সংযোগগুলো উদযাপন করা এবং আরও গভীর করা, যা বহু শতাব্দী ধরে গড়ে উঠেছে এবং আমাদের মিলনের দীর্ঘ ইতিহাসে রেকর্ডেড রয়েছে।”

এর আগে এক বিবৃতিতে, ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, নেপালের প্রধানমন্ত্রী শের বাহাদুর দেউবার আমন্ত্রণে দেশটিতে সফর করবেন মোদী। এসময়, লুম্বিনি প্রদেশে নেপাল সরকারের তত্ত্বাবধানে লুম্বিনি ডেভেলপমেন্ট ট্রাস্ট আয়োজিত বুদ্ধ পূর্ণিমায় যোগ দেয়ার কথা রয়েছে তাঁর। একই সাথে পবিত্র মায়াদেবী মন্দিরেও প্রার্থনা করতে যাবেন তিনি।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ার পর পঞ্চমবারের মত নেপাল সফরে যাচ্ছেন বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রের সরকার প্রধান। জানা গিয়েছে, সফরকালে লুম্বিনি সন্ন্যাস অঞ্চলের মধ্যে আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ কনফেডারেশন নয়াদিল্লির অন্তর্গত একটি প্লটে বৌদ্ধ সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের জন্য একটি কেন্দ্র নির্মাণের জন্য ‘শিলান্যাস’ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন মোদী।

বেশ কয়েকটি মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, নরেন্দ্র মোদী নেপাল সফরে যেতে গিয়ে প্রথমে ভারতের কুশিনগর বিমানবন্দরে নামবেন। সেখান থেকে হেলিকপ্টারে তিনি লুম্বিনীতে একটি বিশেষ হেলিপ্যাডে নামবেন। সেখানে তিনি ভারতের সহায়তায় তৈরি একটি ‘বিহারের’ ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন নেপালের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে।

এদিকে, নেপালের সঙ্গে একাধিক বিষয়ে ভারতের মতভেদ রয়েছে। বিভিন্ন বিষয়ে ভারত ও নেপালের মধ্যে সমঝোতারও অভাব দেখা গিয়েছে। এবার নেপাল চাইছে যাতে ভারতের সঙ্গে লুম্বিনী ও নেপালগঞ্জ সংযুক্ত করা যায়। তবে নেপালের কাছে গোরক্ষপুরে ভারতের প্রতিরক্ষা ঘাঁটি রয়েছে বলে তাতে বাধ সেধেছে দিল্লি। বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সফরে আলাদা করে কোনও প্রসঙ্গ উঠে আসে কি না, সেদিকে তাকিয়ে দেশ। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক