১০:৫৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভারতে ড্রোন উৎসবের উদ্বোধন করলেন মোদী

বর্তমানের টেকস্যাভি দুনিয়ায় অন্যতম জনপ্রিয় গেজেটের মধ্যে প্রথমেই নাম আসে ড্রোনের। বিয়েবাড়ির ফটোশুটিং থেকে শুরু করে তথ্যচিত্র কিংবা সিনেমা, সবকিছুতেই এখন নির্মাতাদের প্রথম পছন্দ ডানা লাগানো এই গেজেটের। কিন্তু তার থেকেও বিশেষ হল ইদানিং কালে যে কোনও প্রতিরক্ষার ক্ষেত্রে এবং নজরদারিতেও খুবই কার্যকর হয়ে উঠেছে ড্রোন। আর সেই উপলক্ষ্যেই ভারতে আয়োজিত হল ড্রোন উৎসব। আর এইদিন প্রধান অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত হলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

প্রধানমন্ত্রী স্বামীত্ব যোজনার মাধ্যমে কীভাবে ড্রোন প্রযুক্তি একটি বড় বিপ্লবের ভিত্তি হয়ে উঠছে তার একটি উদাহরণ সকলের সামনে রাখবে বলে আশাবাদী দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আর শুক্রবার ড্রোন উৎসবে সামিল হয়ে এই প্রযুক্তি এবং বৈজ্ঞানিক উন্নতির ভূয়সী প্রসংশা করলেন নরেন্দ্র মোদী। আগামী দিনে এই ড্রোনকে কাজে লাগিয়ে দেশের একাধিক ক্ষেত্রে এর উপকার লাভ করা যাবে বলেও এইদিন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

শুক্রবার ড্রোন উৎসবে সামিল হয়ে নরেন্দ্র মোদী জানিয়েছেন, ড্রোন প্রযুক্তির অধীনে প্রথমবারের মতো গ্রামের প্রতিটি সম্পত্তি ডিজিটালভাবে ম্যাপ করা হচ্ছে এবং মানুষকে ডিজিটাল সম্পত্তি কার্ড বিলি করা হচ্ছে। মোদী আরও বলেন, আগামী দিনে কৃষি, ক্রীড়া, প্রতিরক্ষা এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার মতো একাধিক গুরুত্বপূর্ণ খাতে ড্রোনের ব্যবহার আরও বাড়বে ভারতে।

২৭ এবং ২৮ মে, দুইদিন ব্যাপী অনুষ্ঠিত হচ্ছে ‘ভারত ড্রোন মহোৎসব ২০২২’। শুক্রবার, অর্থাৎ ২৭ তারিখ রাজধানী নয়া দিল্লির প্রগতি ময়দানে এই অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এছাড়াও এইদিন অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রী জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী মনসুখ মান্ডাভিয়া, কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব, কেন্দ্রীয় পরিবেশ মন্ত্রী ভূপেন্দ্র যাদব এবং গ্রামীণ উন্নয়ন মন্ত্রী গিরিরাজ সিংও উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও ভারতে বিশ্বমানের ড্রোন হাব হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলেও আশা প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

তবে ড্রোন উৎসবে সামিল হয়ে পূর্ববর্তী ইউপিএ সরকারকে কটাক্ষ করতেও ছাড়েননি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তিনি কটাক্ষ করে বলেন, আগের সরকার অর্থাৎ ২০১৪ সালের আগে প্রশাসনে প্রযুক্তির ব্যবহারের প্রতি দেশে যে উদাসিনতার পরিবেশ ছিল, যার কারণে দরিদ্র এবং মধ্যবিত্তরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হন। এরই সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন যে এই উন্নত ড্রোন প্রযুক্তি দেশে কর্মসংস্থান সৃষ্টির একটি উদীয়মান সেক্টর তৈরি হওয়ার সম্ভাবনার ইঙ্গিত দিচ্ছে। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

ভারতে ড্রোন উৎসবের উদ্বোধন করলেন মোদী

প্রকাশ: ০৫:৫৯:১১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২

বর্তমানের টেকস্যাভি দুনিয়ায় অন্যতম জনপ্রিয় গেজেটের মধ্যে প্রথমেই নাম আসে ড্রোনের। বিয়েবাড়ির ফটোশুটিং থেকে শুরু করে তথ্যচিত্র কিংবা সিনেমা, সবকিছুতেই এখন নির্মাতাদের প্রথম পছন্দ ডানা লাগানো এই গেজেটের। কিন্তু তার থেকেও বিশেষ হল ইদানিং কালে যে কোনও প্রতিরক্ষার ক্ষেত্রে এবং নজরদারিতেও খুবই কার্যকর হয়ে উঠেছে ড্রোন। আর সেই উপলক্ষ্যেই ভারতে আয়োজিত হল ড্রোন উৎসব। আর এইদিন প্রধান অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত হলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

প্রধানমন্ত্রী স্বামীত্ব যোজনার মাধ্যমে কীভাবে ড্রোন প্রযুক্তি একটি বড় বিপ্লবের ভিত্তি হয়ে উঠছে তার একটি উদাহরণ সকলের সামনে রাখবে বলে আশাবাদী দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আর শুক্রবার ড্রোন উৎসবে সামিল হয়ে এই প্রযুক্তি এবং বৈজ্ঞানিক উন্নতির ভূয়সী প্রসংশা করলেন নরেন্দ্র মোদী। আগামী দিনে এই ড্রোনকে কাজে লাগিয়ে দেশের একাধিক ক্ষেত্রে এর উপকার লাভ করা যাবে বলেও এইদিন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

শুক্রবার ড্রোন উৎসবে সামিল হয়ে নরেন্দ্র মোদী জানিয়েছেন, ড্রোন প্রযুক্তির অধীনে প্রথমবারের মতো গ্রামের প্রতিটি সম্পত্তি ডিজিটালভাবে ম্যাপ করা হচ্ছে এবং মানুষকে ডিজিটাল সম্পত্তি কার্ড বিলি করা হচ্ছে। মোদী আরও বলেন, আগামী দিনে কৃষি, ক্রীড়া, প্রতিরক্ষা এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার মতো একাধিক গুরুত্বপূর্ণ খাতে ড্রোনের ব্যবহার আরও বাড়বে ভারতে।

২৭ এবং ২৮ মে, দুইদিন ব্যাপী অনুষ্ঠিত হচ্ছে ‘ভারত ড্রোন মহোৎসব ২০২২’। শুক্রবার, অর্থাৎ ২৭ তারিখ রাজধানী নয়া দিল্লির প্রগতি ময়দানে এই অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এছাড়াও এইদিন অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রী জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী মনসুখ মান্ডাভিয়া, কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব, কেন্দ্রীয় পরিবেশ মন্ত্রী ভূপেন্দ্র যাদব এবং গ্রামীণ উন্নয়ন মন্ত্রী গিরিরাজ সিংও উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও ভারতে বিশ্বমানের ড্রোন হাব হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলেও আশা প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

তবে ড্রোন উৎসবে সামিল হয়ে পূর্ববর্তী ইউপিএ সরকারকে কটাক্ষ করতেও ছাড়েননি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তিনি কটাক্ষ করে বলেন, আগের সরকার অর্থাৎ ২০১৪ সালের আগে প্রশাসনে প্রযুক্তির ব্যবহারের প্রতি দেশে যে উদাসিনতার পরিবেশ ছিল, যার কারণে দরিদ্র এবং মধ্যবিত্তরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হন। এরই সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন যে এই উন্নত ড্রোন প্রযুক্তি দেশে কর্মসংস্থান সৃষ্টির একটি উদীয়মান সেক্টর তৈরি হওয়ার সম্ভাবনার ইঙ্গিত দিচ্ছে। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক