০১:৫৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

আবারও শ্রীলঙ্কায় সাহায্য পাঠালো ভারত

সংকটের মুখে পড়ে দেউলিয়া হয়েছে শ্রীলঙ্কা। অর্থনীতির বেহাল দশার জেরে অশান্ত লঙ্কায় বদলেছে প্রধানমন্ত্রী। এই সবের মাঝেই ভারত যথাসাধ্য সাহায্য করে চলেছে দ্বীপরাষ্ট্রকে। এরই ধারাবাহিকতায় গত শনিবার আবারও দেশটিতে সহায়তা সামগ্রী পাঠালো নয়াদিল্লী। এবার, শ্রীলঙ্কার উত্তর প্রদেশের জাফনা টিচিং হাসপাতালে (জেটিএইচ) দুটি ট্রাক ভর্তি জীবন রক্ষাকারী ওষুধ এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সরঞ্জাম সরবরাহ করেছে মোদী সরকার।

উক্ত এই সহায়তা চালান জাফনায় ভারতের কনসাল জেনারেল রাকেশ নটরাজ কর্তৃক শ্রীলঙ্কার ডিরেক্টর (ভারপ্রাপ্ত) জেটিএইচ ডাঃ নন্থকুমারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এছাড়া, সমগ্র দ্বীপ রাষ্ট্রের উত্তরাঞ্চল জুড়ে মৌলিক এবং প্রয়োজনীয় সামগ্রী নিশ্চিত করতে আরও ভারতীয় সহায়তার পরিকল্পনা করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

এ সম্পর্কে জাফনায় ভারতের কনস্যুলেট জেনারেলের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টে বলা হয়েছে,
“দুটি ট্রাক বোঝাই সিজি লঙ্কান কর্মকর্তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আরও সাহায্যের পরিকল্পনা করা হচ্ছে।”

মূলত, ঘোর আর্থিক সঙ্কটে পড়া শ্রীলঙ্কাকে প্রতিবেশী প্রথম নীতির আওতায় নিয়মিত ত্রাণ ও চিকিৎসা সহায়তা পাঠাচ্ছে ভারত সরকার। এর আগে গত সপ্তাহেও শ্রীলঙ্কাকে প্রয়োজনীয় জিনিস যেমন চাল, দুধের গুঁড়া এবং কেরোসিন সরবরাহ করেছে ভারত।

কিছুদিন পূর্বেই ভারতের প্রশংসা করে বক্তব্য দিয়েছিলেন শ্রীলঙ্কার নতুন প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমসিংহেও। এই দুর্দিনে ভারত পাশে এসে দাঁড়ানোয় রনিল বিক্রমাসিংহে একটি টুইটে লেখেন, “দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরও জোরদার করা হবে।” পাশাপাশি তিনি জানান, ভারতের অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমনের সঙ্গে বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে তাঁর।

টুইট বার্তায় শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী আরও লেখেন, “আমি আজ ভারতের অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমনের সঙ্গে কথা বলেছি। এই কঠিন সময়ে ভারত যে সমর্থনের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে, তার জন্য আমি আমার দেশের তরফে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আমি আমাদের দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরও জোরদার করার জন্য মুখিয়ে আছি।”

এরপর রনিল আরও একটি টুইটে লেখেন, “কোয়াড সদস্যদের (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, জাপান এবং অস্ট্রেলিয়া) কাছে বিদেশি কনসোর্টিয়াম প্রতিষ্ঠায় নেতৃত্ব দেওয়ার প্রস্তাবে ভারত এবং জাপান যে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া দিয়েছে, তার জন্যও আমি কৃতজ্ঞ।”

উল্লেখ্য, বিগত দিনে চীনা ঋণে জর্জরিত হয়ে শ্রীলঙ্কার অর্থনীতি ভেঙে পড়েছে। চীনকে হামবানটোটা বন্দর ৯৯ বছরের জন্য লিজ দিতে বাধ্য হয়েছিল শ্রীলঙ্কা সরকার। এই আবহে শ্রীলঙ্কার আর্থিক সংকটের সময় ঋণ মুকুব করতে চায়নি চীন। তবে আরও ঋণ দেওয়ার প্রস্তাব জানিয়েছিল দেশটি।

তবে শ্রীলঙ্কা আপাতত ভারতের ঘনিষ্ঠ হওয়ার চেষ্টা করছে। এদিকে কোয়াডের কাছে শ্রীলঙ্কার এই কনসোর্টিয়াম গঠনের প্রস্তাব বেজিংয়ের কাছে বড় ধাক্কা।

এদিকে ভারত আবারও ২৫ টন ওষুধ, জ্বালানি তেল, চাল পাঠিয়েছে শ্রীলঙ্কায়। শ্রীলঙ্কার জন্য ৫০০ মিলিয়ন ডলার ঋণের সীমা বাড়িয়েছে ভারত। এই আবহে দক্ষিণ এশিয়া তথা ভারত মহাসাগর অঞ্চলের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট বদলাচ্ছে বলে মনে করছেন অনেক বিশ্লেষকই।

চীনা ঋণের ফাঁদে পড়ে শ্রীলঙ্কার মতো পাকিস্তানেরও বেহাল দশা। এদিকে নেপাল ও বাংলাদেশও সম্প্রতি চীনা ফাঁদের বিষয়ে ‘সতর্ক’ হয়েছে। এই আবহে চীন ক্রমশ দক্ষিণ এশিয়ায় নিজেদের প্রভাব হারাতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

আবারও শ্রীলঙ্কায় সাহায্য পাঠালো ভারত

প্রকাশ: ০৭:৩৯:২৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ৬ জুন ২০২২

সংকটের মুখে পড়ে দেউলিয়া হয়েছে শ্রীলঙ্কা। অর্থনীতির বেহাল দশার জেরে অশান্ত লঙ্কায় বদলেছে প্রধানমন্ত্রী। এই সবের মাঝেই ভারত যথাসাধ্য সাহায্য করে চলেছে দ্বীপরাষ্ট্রকে। এরই ধারাবাহিকতায় গত শনিবার আবারও দেশটিতে সহায়তা সামগ্রী পাঠালো নয়াদিল্লী। এবার, শ্রীলঙ্কার উত্তর প্রদেশের জাফনা টিচিং হাসপাতালে (জেটিএইচ) দুটি ট্রাক ভর্তি জীবন রক্ষাকারী ওষুধ এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সরঞ্জাম সরবরাহ করেছে মোদী সরকার।

উক্ত এই সহায়তা চালান জাফনায় ভারতের কনসাল জেনারেল রাকেশ নটরাজ কর্তৃক শ্রীলঙ্কার ডিরেক্টর (ভারপ্রাপ্ত) জেটিএইচ ডাঃ নন্থকুমারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এছাড়া, সমগ্র দ্বীপ রাষ্ট্রের উত্তরাঞ্চল জুড়ে মৌলিক এবং প্রয়োজনীয় সামগ্রী নিশ্চিত করতে আরও ভারতীয় সহায়তার পরিকল্পনা করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

এ সম্পর্কে জাফনায় ভারতের কনস্যুলেট জেনারেলের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টে বলা হয়েছে,
“দুটি ট্রাক বোঝাই সিজি লঙ্কান কর্মকর্তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আরও সাহায্যের পরিকল্পনা করা হচ্ছে।”

মূলত, ঘোর আর্থিক সঙ্কটে পড়া শ্রীলঙ্কাকে প্রতিবেশী প্রথম নীতির আওতায় নিয়মিত ত্রাণ ও চিকিৎসা সহায়তা পাঠাচ্ছে ভারত সরকার। এর আগে গত সপ্তাহেও শ্রীলঙ্কাকে প্রয়োজনীয় জিনিস যেমন চাল, দুধের গুঁড়া এবং কেরোসিন সরবরাহ করেছে ভারত।

কিছুদিন পূর্বেই ভারতের প্রশংসা করে বক্তব্য দিয়েছিলেন শ্রীলঙ্কার নতুন প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমসিংহেও। এই দুর্দিনে ভারত পাশে এসে দাঁড়ানোয় রনিল বিক্রমাসিংহে একটি টুইটে লেখেন, “দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরও জোরদার করা হবে।” পাশাপাশি তিনি জানান, ভারতের অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমনের সঙ্গে বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে তাঁর।

টুইট বার্তায় শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী আরও লেখেন, “আমি আজ ভারতের অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমনের সঙ্গে কথা বলেছি। এই কঠিন সময়ে ভারত যে সমর্থনের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে, তার জন্য আমি আমার দেশের তরফে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আমি আমাদের দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরও জোরদার করার জন্য মুখিয়ে আছি।”

এরপর রনিল আরও একটি টুইটে লেখেন, “কোয়াড সদস্যদের (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, জাপান এবং অস্ট্রেলিয়া) কাছে বিদেশি কনসোর্টিয়াম প্রতিষ্ঠায় নেতৃত্ব দেওয়ার প্রস্তাবে ভারত এবং জাপান যে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া দিয়েছে, তার জন্যও আমি কৃতজ্ঞ।”

উল্লেখ্য, বিগত দিনে চীনা ঋণে জর্জরিত হয়ে শ্রীলঙ্কার অর্থনীতি ভেঙে পড়েছে। চীনকে হামবানটোটা বন্দর ৯৯ বছরের জন্য লিজ দিতে বাধ্য হয়েছিল শ্রীলঙ্কা সরকার। এই আবহে শ্রীলঙ্কার আর্থিক সংকটের সময় ঋণ মুকুব করতে চায়নি চীন। তবে আরও ঋণ দেওয়ার প্রস্তাব জানিয়েছিল দেশটি।

তবে শ্রীলঙ্কা আপাতত ভারতের ঘনিষ্ঠ হওয়ার চেষ্টা করছে। এদিকে কোয়াডের কাছে শ্রীলঙ্কার এই কনসোর্টিয়াম গঠনের প্রস্তাব বেজিংয়ের কাছে বড় ধাক্কা।

এদিকে ভারত আবারও ২৫ টন ওষুধ, জ্বালানি তেল, চাল পাঠিয়েছে শ্রীলঙ্কায়। শ্রীলঙ্কার জন্য ৫০০ মিলিয়ন ডলার ঋণের সীমা বাড়িয়েছে ভারত। এই আবহে দক্ষিণ এশিয়া তথা ভারত মহাসাগর অঞ্চলের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট বদলাচ্ছে বলে মনে করছেন অনেক বিশ্লেষকই।

চীনা ঋণের ফাঁদে পড়ে শ্রীলঙ্কার মতো পাকিস্তানেরও বেহাল দশা। এদিকে নেপাল ও বাংলাদেশও সম্প্রতি চীনা ফাঁদের বিষয়ে ‘সতর্ক’ হয়েছে। এই আবহে চীন ক্রমশ দক্ষিণ এশিয়ায় নিজেদের প্রভাব হারাতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক