০১:২৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চাবাহার বন্দর: ইরানী মন্ত্রীর সাথে কোয়াত্রার ফোনালাপ

ইরানের চাবাহার বন্দরের উন্নয়ন অগ্রগতি নিয়ে মঙ্গলবার এক ফোনালাপে মতবিনিময় করেছেন ভারতীয় পররাষ্ট্র সচিব বিনয় মোহন কোয়াত্রা এবং ইরানের রাজনৈতিক বিষয়ক উপমন্ত্রী আলি বাঘেরি কানি। পরবর্তীতে তথ্যটি নিশ্চিত করে বিবৃতি দিয়েছে ভারতের পররাষ্ট্র দপ্তর। তারা জানিয়েছে, উভয় পক্ষ চাবাহার বন্দরের অগ্রগতি সহ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের বিভিন্ন উপাদান নিয়ে আলোচনা করেছে।

জানা গিয়েছে, আলোচনাকালে ইরানের সাথে দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা জোরদার করার জন্য ভারতের প্রতিশ্রুতির কথা তুলে ধরেন কোয়াত্রা। এছাড়া, উভয় পক্ষ আফগানিস্তান সহ আন্তর্জাতিক এবং আঞ্চলিক বিষয়েও আলোচনা করেছে।

উল্লেখ্য, গত মাসেও ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রী হোসেইন আমির আবদুল্লাহিয়ান এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্করের মধ্যে নয়াদিল্লিতে প্রতিনিধি পর্যায়ের আলোচনায় চাবাহার বন্দরের উন্নয়নের বিষয়টি স্থান পেয়েছিলো।

পররাষ্ট্র দপ্তর জানায়, ভারত সম্মত হয়েছে যে চাবাহার বন্দরটি স্থলবেষ্টিত আফগানিস্তানকে অত্যন্ত প্রয়োজনীয় সমুদ্র অ্যাক্সেস দিয়েছে এবং এই অঞ্চলের জন্য একটি বাণিজ্যিক পরিবহন কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে, বিশেষ করে মধ্য এশিয়ার জন্য।

উভয় পক্ষ চাবাহার বন্দর নির্মাণের জন্য একসাথে কাজ করার দৃঢ়সংকল্প পুনর্ব্যক্ত করেছে এবং সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে উভয় দেশের প্রতিনিধিগণ শীঘ্রই অপারেশনাল সমস্যা নিয়ে আলোচনা করতে একত্রিত হবে।

প্রসঙ্গত, চাবাহার বন্দর (চাবা হার বন্দর) হল ইরান এর দক্ষিণ-পূর্বে সিস্টান এবং বেলুচিস্তান প্রদেশে অবস্থিত একটি সমুদ্র বন্দর। এই বন্দরটি ওমান উপসাগর এর তীরে অবস্থিত। ইরানের এই বন্দরটি পারস্য উপসাগর এর বাইরে আরব সাগরের জলভাগে অবস্থিত।

ইরানের উপকূলে যে চাবাহার বন্দর নির্মাণে ভারত খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে, সেটি আফগানিস্তান ও মধ্য এশিয়ায় স্থলপথে অ্যাকসেসের জন্য ভারতের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে ধরা হয়।

বছর চারেক আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ইরান সফরের সময় তিনি আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনির সঙ্গে মিলে তেহরানের সঙ্গে যৌথভাবে একটি চুক্তিতেও স্বাক্ষর করেন, যাতে চাবাহার থেকে আফগানিস্তানের জারাঞ্জ পর্যন্ত রেল ও সড়কপথে পরিবহন করিডর নির্মাণের দায়িত্ব পায় ভারত। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

চাবাহার বন্দর: ইরানী মন্ত্রীর সাথে কোয়াত্রার ফোনালাপ

প্রকাশ: ০৪:০৫:০৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ জুলাই ২০২২

ইরানের চাবাহার বন্দরের উন্নয়ন অগ্রগতি নিয়ে মঙ্গলবার এক ফোনালাপে মতবিনিময় করেছেন ভারতীয় পররাষ্ট্র সচিব বিনয় মোহন কোয়াত্রা এবং ইরানের রাজনৈতিক বিষয়ক উপমন্ত্রী আলি বাঘেরি কানি। পরবর্তীতে তথ্যটি নিশ্চিত করে বিবৃতি দিয়েছে ভারতের পররাষ্ট্র দপ্তর। তারা জানিয়েছে, উভয় পক্ষ চাবাহার বন্দরের অগ্রগতি সহ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের বিভিন্ন উপাদান নিয়ে আলোচনা করেছে।

জানা গিয়েছে, আলোচনাকালে ইরানের সাথে দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা জোরদার করার জন্য ভারতের প্রতিশ্রুতির কথা তুলে ধরেন কোয়াত্রা। এছাড়া, উভয় পক্ষ আফগানিস্তান সহ আন্তর্জাতিক এবং আঞ্চলিক বিষয়েও আলোচনা করেছে।

উল্লেখ্য, গত মাসেও ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রী হোসেইন আমির আবদুল্লাহিয়ান এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্করের মধ্যে নয়াদিল্লিতে প্রতিনিধি পর্যায়ের আলোচনায় চাবাহার বন্দরের উন্নয়নের বিষয়টি স্থান পেয়েছিলো।

পররাষ্ট্র দপ্তর জানায়, ভারত সম্মত হয়েছে যে চাবাহার বন্দরটি স্থলবেষ্টিত আফগানিস্তানকে অত্যন্ত প্রয়োজনীয় সমুদ্র অ্যাক্সেস দিয়েছে এবং এই অঞ্চলের জন্য একটি বাণিজ্যিক পরিবহন কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে, বিশেষ করে মধ্য এশিয়ার জন্য।

উভয় পক্ষ চাবাহার বন্দর নির্মাণের জন্য একসাথে কাজ করার দৃঢ়সংকল্প পুনর্ব্যক্ত করেছে এবং সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে উভয় দেশের প্রতিনিধিগণ শীঘ্রই অপারেশনাল সমস্যা নিয়ে আলোচনা করতে একত্রিত হবে।

প্রসঙ্গত, চাবাহার বন্দর (চাবা হার বন্দর) হল ইরান এর দক্ষিণ-পূর্বে সিস্টান এবং বেলুচিস্তান প্রদেশে অবস্থিত একটি সমুদ্র বন্দর। এই বন্দরটি ওমান উপসাগর এর তীরে অবস্থিত। ইরানের এই বন্দরটি পারস্য উপসাগর এর বাইরে আরব সাগরের জলভাগে অবস্থিত।

ইরানের উপকূলে যে চাবাহার বন্দর নির্মাণে ভারত খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে, সেটি আফগানিস্তান ও মধ্য এশিয়ায় স্থলপথে অ্যাকসেসের জন্য ভারতের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে ধরা হয়।

বছর চারেক আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ইরান সফরের সময় তিনি আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনির সঙ্গে মিলে তেহরানের সঙ্গে যৌথভাবে একটি চুক্তিতেও স্বাক্ষর করেন, যাতে চাবাহার থেকে আফগানিস্তানের জারাঞ্জ পর্যন্ত রেল ও সড়কপথে পরিবহন করিডর নির্মাণের দায়িত্ব পায় ভারত। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক