০৯:২৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

অজি-ভারত সম্পর্কোন্নয়নে সবার মঙ্গল: জয়শঙ্কর

২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনের ভূখণ্ডে সামরিক অভিযানের ঘোষণা করেছিলেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তারপরই একেএকে পশ্চিমী বিশ্বের বিভিন্ন দেশ রাশিয়ার উপর একাধিক নিষেধাজ্ঞা জারি করে। রাষ্ট্রসঙ্ঘে রাশিয়ার বিরুদ্ধে প্রস্তাবে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ভোট দিলেও বিরত থাকে ভারত। রাশিয়া-ইউক্রেনের যুদ্ধের বিরোধিতা করলেও নিরপেক্ষ বিদেশ নীতিতে ভর করেই প্রতিবার রাশিয়ার বিরুদ্ধে ভোট দেয়নি ভারত। এই আবহে রাশিয়া-ইউক্রেনের মধ্যেই রাশিয়া-ভারতের সম্পর্ক নিয়ে বারংবার প্রশ্ন তুলেছিল পশ্চিমী বিশ্বের একাধিক দেশ। এই যুদ্ধের আবহে রাশিয়া থেকে ভারতের তেল আমদানি করাও ভালো নজরে দেখেনি একাধিক দেশ। বিশেষত আমেরিকা এই বিষয়ে একাধিকবার হুঁশিয়ারি দিয়েছে ভারতকে। তবে বিভিন্ন সময়ে সেইসব হুঁশিয়ারির পাল্টা জবাবও দিয়েছেন বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। এবার ভারতের অস্ত্র ভাণ্ডারে রাশিয়ার অস্ত্রের বাড়বাড়ন্তের প্রশ্নে সপাটে জবাব দিলেন বিদেশমন্ত্রী। তিনি স্পষ্ট জানিয়েছেন, পশ্চিমী দেশগুলি সেই সময় ভারতে অস্ত্র সরবরাহ করত না।

বিদেশমন্ত্রী সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার রাজধানী ক্যানবেরায় একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গিয়েছিলেন। সংবাদ সংস্থা এএনআই-র শেয়ার করা একটি ভিডিয়ো অনুযায়ী সেই অনুষ্ঠান বিদেশমন্ত্রী বলেছেন, ‘আপনারা সবাই জানেন ভারতের অস্ত্র ভাণ্ডারে রাশিয়ার তৈরি প্রচুর অস্ত্র রয়েছে। বিভিন্ন কারণে সেই অস্ত্র ভাণ্ডার বেড়েছে। অস্ত্রগুলোর যে গুণমান শুধু ভাল তাই নয়, বিগত কয়েক দশক ধরে পশ্চিমী দেশগুলি ভারতকে অস্ত্র সরবরাহ করেনি। আমি মনে করি, যা আমাদের কাছে রয়েছে তা নিয়েই আমরা আন্তর্জাতিক রাজনীতির ক্ষেত্রে সবসময় কাজ করি। আমাদের দেশের বর্তমান ও ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকি।’

প্রসঙ্গত, রাশিয়ার থেকে এস ৪০০ এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম কিনছে নয়া দিল্লি। এদিকে মার্কিন আইনের অধীনে এই কারণে ভারতের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করতে পারে আমেরিকা। তবে দিল্লির তরফে বিরোধিতা করা হয়েছে এই নিষেধাজ্ঞার। এক্ষেত্রে উল্লেখ্য, আমেরিকাতে ‘কাউন্টারিং অ্যামেরিকা’স অ্যাডভারসারিজ থ্রু স্যাংশনস অ্যাক্ট’ কার্যকর রয়েছে। কোনও দেশ রাশিয়া থেকে কোনও বড়সড় প্রতিরক্ষামূলক অস্ত্রশস্ত্র কিনলে সেই দেশের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করতে পারে আমেরিকা। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

অজি-ভারত সম্পর্কোন্নয়নে সবার মঙ্গল: জয়শঙ্কর

প্রকাশ: ০৪:৪৯:৪৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ অক্টোবর ২০২২

২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনের ভূখণ্ডে সামরিক অভিযানের ঘোষণা করেছিলেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তারপরই একেএকে পশ্চিমী বিশ্বের বিভিন্ন দেশ রাশিয়ার উপর একাধিক নিষেধাজ্ঞা জারি করে। রাষ্ট্রসঙ্ঘে রাশিয়ার বিরুদ্ধে প্রস্তাবে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ভোট দিলেও বিরত থাকে ভারত। রাশিয়া-ইউক্রেনের যুদ্ধের বিরোধিতা করলেও নিরপেক্ষ বিদেশ নীতিতে ভর করেই প্রতিবার রাশিয়ার বিরুদ্ধে ভোট দেয়নি ভারত। এই আবহে রাশিয়া-ইউক্রেনের মধ্যেই রাশিয়া-ভারতের সম্পর্ক নিয়ে বারংবার প্রশ্ন তুলেছিল পশ্চিমী বিশ্বের একাধিক দেশ। এই যুদ্ধের আবহে রাশিয়া থেকে ভারতের তেল আমদানি করাও ভালো নজরে দেখেনি একাধিক দেশ। বিশেষত আমেরিকা এই বিষয়ে একাধিকবার হুঁশিয়ারি দিয়েছে ভারতকে। তবে বিভিন্ন সময়ে সেইসব হুঁশিয়ারির পাল্টা জবাবও দিয়েছেন বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। এবার ভারতের অস্ত্র ভাণ্ডারে রাশিয়ার অস্ত্রের বাড়বাড়ন্তের প্রশ্নে সপাটে জবাব দিলেন বিদেশমন্ত্রী। তিনি স্পষ্ট জানিয়েছেন, পশ্চিমী দেশগুলি সেই সময় ভারতে অস্ত্র সরবরাহ করত না।

বিদেশমন্ত্রী সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার রাজধানী ক্যানবেরায় একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গিয়েছিলেন। সংবাদ সংস্থা এএনআই-র শেয়ার করা একটি ভিডিয়ো অনুযায়ী সেই অনুষ্ঠান বিদেশমন্ত্রী বলেছেন, ‘আপনারা সবাই জানেন ভারতের অস্ত্র ভাণ্ডারে রাশিয়ার তৈরি প্রচুর অস্ত্র রয়েছে। বিভিন্ন কারণে সেই অস্ত্র ভাণ্ডার বেড়েছে। অস্ত্রগুলোর যে গুণমান শুধু ভাল তাই নয়, বিগত কয়েক দশক ধরে পশ্চিমী দেশগুলি ভারতকে অস্ত্র সরবরাহ করেনি। আমি মনে করি, যা আমাদের কাছে রয়েছে তা নিয়েই আমরা আন্তর্জাতিক রাজনীতির ক্ষেত্রে সবসময় কাজ করি। আমাদের দেশের বর্তমান ও ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকি।’

প্রসঙ্গত, রাশিয়ার থেকে এস ৪০০ এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম কিনছে নয়া দিল্লি। এদিকে মার্কিন আইনের অধীনে এই কারণে ভারতের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করতে পারে আমেরিকা। তবে দিল্লির তরফে বিরোধিতা করা হয়েছে এই নিষেধাজ্ঞার। এক্ষেত্রে উল্লেখ্য, আমেরিকাতে ‘কাউন্টারিং অ্যামেরিকা’স অ্যাডভারসারিজ থ্রু স্যাংশনস অ্যাক্ট’ কার্যকর রয়েছে। কোনও দেশ রাশিয়া থেকে কোনও বড়সড় প্রতিরক্ষামূলক অস্ত্রশস্ত্র কিনলে সেই দেশের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করতে পারে আমেরিকা। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক