১২:৪৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ইউক্রেনে রুশ ক্ষেপণাস্ত্র হামলার নিন্দা জয়শঙ্করের

ইউক্রেনে যেভাবে পরিকাঠামো লক্ষ্য করে হামলা চালানো হচ্ছে এবং সাধারণ নাগরিকরা প্রাণ হারাচ্ছেন, তা মেনে নেওয়া যায় না। এমনই জানালেন ভারতের বিদেশমন্ত্রী এস জয়শংকর। দুই দেশকেই কূটনীতির পথে সমস্যা সমাধানের আরজি জানিয়ে তাঁর বক্তব্য, “এই সংঘর্ষে কারও কোনও উপকার হবে না।” রাষ্ট্রসংঘে রাশিয়ার বিরুদ্ধে আনা প্রস্তাবে ভোট দিয়েছে ভারত। এরপরই বিদেশমন্ত্রীর এহেন মন্তব্য। ‘বন্ধু’ রাশিয়ার ইউক্রেনের উপরে ক্ষেপণাস্ত্র বর্ষণ যে নয়াদিল্লি আদৌ ভালভাবে নিচ্ছে না তা পরিষ্কার।

গত ফেব্রুয়ারিতে রুশ সেনা ইউক্রেনের আকাশে ঢুকে পড়ার পর থেকেই প্রশ্ন উঠেছে, এই সংঘর্ষে ভারতের অবস্থান কী হবে। যত সময় যাচ্ছে, তত নয়াদিল্লি ভারসাম্য বজায় রেখেও যুদ্ধবিরোধী অবস্থানেই স্থির থাকার নীতি বজায় রাখছে। তা ফের পরিষ্কার হয়ে গিয়েছে জয়শংকরের বক্তব্যে। অস্ট্রেলিয়া সফরে এসেছেন বিদেশমন্ত্রী। লোওয়ি ইনস্টিটিউটে বক্তব্য রাখার পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখোমুখি হন তিনি। ইউক্রেনের মাটিতে আছড়ে রুশ ক্ষেপণাস্ত্র প্রসঙ্গে প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হয় তাঁর কাছে।

সেই সময়ই বিদেশমন্ত্রীকে বলতে শোনা যায়, “পৃথিবীর কোনও প্রান্তেই পরিকাঠামো লক্ষ্য করে হামলা চালানো এবং নিরীহ মানুষকে মেরে ফেলাটা কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।” সেই সঙ্গে জয়শংকর বলেন, এই সংঘর্ষের প্রভাব সারা বিশ্বের এক বৃহত্তর জনসমষ্টির উপরেই পড়ছে। কেননা দৈনন্দিন জীবন ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

জয়শংকরের কথায়, ”এই সব দেশগুলির অবসাদ বাড়ছে, কেননা তারা মনে করছে তাদের সমস্যাগুলো অবহেলিত হচ্ছে।”

তবে এই ধরনের হামলার বিরোধিতা করলেও কূটনৈতিক অবস্থানে ভারসাম্য কিন্তু বজায় রেখেছে ভারত। এখনও পর্যন্ত নয়াদিল্লিকে সরাসরি রাশিয়ার নিন্দা করতে দেখা যায়নি। বরং ভারত বারবারই দুই দেশকে কূটনৈতিক পদ্ধতিতে মুখোমুখি আলোচনায় বসে সমস্যা সমাধানের বার্তা দিয়ে গিয়েছে।

প্রসঙ্গত, ইউক্রেনের চারটি অঞ্চলকে অবৈধ ভাবে রাশিয়ায় সংযুক্ত করার নিন্দা প্রস্তাবের খসড়ায় ভোটাভুটিতে গোপন ব্যালটের দাবি জানিয়েছিল মস্কো। সেই প্রস্তাবের বিরুদ্ধেই ভোট দিয়েছে ভারত। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

ইউক্রেনে রুশ ক্ষেপণাস্ত্র হামলার নিন্দা জয়শঙ্করের

প্রকাশ: ০৫:১৪:১৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ১২ অক্টোবর ২০২২

ইউক্রেনে যেভাবে পরিকাঠামো লক্ষ্য করে হামলা চালানো হচ্ছে এবং সাধারণ নাগরিকরা প্রাণ হারাচ্ছেন, তা মেনে নেওয়া যায় না। এমনই জানালেন ভারতের বিদেশমন্ত্রী এস জয়শংকর। দুই দেশকেই কূটনীতির পথে সমস্যা সমাধানের আরজি জানিয়ে তাঁর বক্তব্য, “এই সংঘর্ষে কারও কোনও উপকার হবে না।” রাষ্ট্রসংঘে রাশিয়ার বিরুদ্ধে আনা প্রস্তাবে ভোট দিয়েছে ভারত। এরপরই বিদেশমন্ত্রীর এহেন মন্তব্য। ‘বন্ধু’ রাশিয়ার ইউক্রেনের উপরে ক্ষেপণাস্ত্র বর্ষণ যে নয়াদিল্লি আদৌ ভালভাবে নিচ্ছে না তা পরিষ্কার।

গত ফেব্রুয়ারিতে রুশ সেনা ইউক্রেনের আকাশে ঢুকে পড়ার পর থেকেই প্রশ্ন উঠেছে, এই সংঘর্ষে ভারতের অবস্থান কী হবে। যত সময় যাচ্ছে, তত নয়াদিল্লি ভারসাম্য বজায় রেখেও যুদ্ধবিরোধী অবস্থানেই স্থির থাকার নীতি বজায় রাখছে। তা ফের পরিষ্কার হয়ে গিয়েছে জয়শংকরের বক্তব্যে। অস্ট্রেলিয়া সফরে এসেছেন বিদেশমন্ত্রী। লোওয়ি ইনস্টিটিউটে বক্তব্য রাখার পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখোমুখি হন তিনি। ইউক্রেনের মাটিতে আছড়ে রুশ ক্ষেপণাস্ত্র প্রসঙ্গে প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হয় তাঁর কাছে।

সেই সময়ই বিদেশমন্ত্রীকে বলতে শোনা যায়, “পৃথিবীর কোনও প্রান্তেই পরিকাঠামো লক্ষ্য করে হামলা চালানো এবং নিরীহ মানুষকে মেরে ফেলাটা কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।” সেই সঙ্গে জয়শংকর বলেন, এই সংঘর্ষের প্রভাব সারা বিশ্বের এক বৃহত্তর জনসমষ্টির উপরেই পড়ছে। কেননা দৈনন্দিন জীবন ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

জয়শংকরের কথায়, ”এই সব দেশগুলির অবসাদ বাড়ছে, কেননা তারা মনে করছে তাদের সমস্যাগুলো অবহেলিত হচ্ছে।”

তবে এই ধরনের হামলার বিরোধিতা করলেও কূটনৈতিক অবস্থানে ভারসাম্য কিন্তু বজায় রেখেছে ভারত। এখনও পর্যন্ত নয়াদিল্লিকে সরাসরি রাশিয়ার নিন্দা করতে দেখা যায়নি। বরং ভারত বারবারই দুই দেশকে কূটনৈতিক পদ্ধতিতে মুখোমুখি আলোচনায় বসে সমস্যা সমাধানের বার্তা দিয়ে গিয়েছে।

প্রসঙ্গত, ইউক্রেনের চারটি অঞ্চলকে অবৈধ ভাবে রাশিয়ায় সংযুক্ত করার নিন্দা প্রস্তাবের খসড়ায় ভোটাভুটিতে গোপন ব্যালটের দাবি জানিয়েছিল মস্কো। সেই প্রস্তাবের বিরুদ্ধেই ভোট দিয়েছে ভারত। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক