০৮:৫৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে একতার ডাক ভারতের

পাকিস্তান সহ সমস্ত প্রতিবেশীর সঙ্গে সুসম্পর্ক রাখার ব্যাপারে আগ্রহী ভারত। কাজাখস্তানের আস্তানায় কনফারেন্স অন ইন্টারাকশন অ্যান্ড কনফিডেন্স বিল্ডিং মেজারস ইন এশিয়া (সিআইসিএ) বক্তব্য রাখতে গিয়ে এ কথা জানিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী মিনাক্ষী লেখি। একইসাথে ভারতের সঙ্গে অনুকূল সম্পর্ক স্থাপনে প্রয়োজনীয় পরিবেশ তৈরি করার জন্য ইসলামবাদকেই উদ্যোগ নিতে হবে বলে স্পষ্ট জানিয়ে দেন মোদী মন্ত্রীসভার গুরুত্বপূর্ণ এই সদস্য।

এর আগে সিআইসিএ-এর ষষ্ঠ সম্মেলনে বক্তব্য রাখতে গিয়ে লেখি পাকিস্তানের কড়া সমালোচনা করেন। ইসলামবাদ বিশ্ব সন্ত্রাসবাদের কেন্দ্রস্থল বলেও অভিযোগ করেন। সেই সঙ্গে ভারতে সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপের মদতদাতা হিসেবে পাকিস্তানকে কাঠগড়ায় দাঁড় করান তিনি। সন্ত্রাসবাদকে উৎসাহ দিতে পাক সরকার প্রচুর পরিমাণে অর্থ বিনিয়োগ করছে বলেও অভিযোগ করেন পররাষ্ট্র দফতরের প্রতিমন্ত্রী।

তবে, ইসলামাবাদের সঙ্গে নয়াদিল্লি যে সুসম্পর্ক গড়ে তুলতে চায় তাও স্পষ্ট করেন মিনাক্ষী লেখি। সম্পর্কের উন্নতির জন্য ইসলামাবাদের কোর্টেই বল ঠেলে দেন তিনি। আর সেই সঙ্গে বিশ্বাসযোগ্যতা গড়ে তোলার জন্যও পাকিস্তানের প্রতি বার্তা দেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী।

পাকিস্তানকে অবিলম্বে ভারত-বিরোধী আন্তঃসীমান্ত সন্ত্রাসবাদ বন্ধ করার পরামর্শ দেওয়ার পাশাপাশি সেই সঙ্গে পাক সীমানা এলাকায় যে সমস্ত জঙ্গি ঘাঁটি আছে, সেগুলোও ভেঙে দেওয়ার জন্য বার্তা দেন তিনি। ইসলামাবাদের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ করেন। পাক অধিকৃত কাশ্মীরে মানবাধিকার লঙ্ঘনের যে অভিযোগ ইসলামাবাদের বিরুদ্ধে উঠছে, তা শীঘ্রই বন্ধ করতে হবে বলে জানান।

কাজাখস্তানের আস্তানায় সিআইসিএ- সম্মলেন পাকিস্তানের কাশ্মীর প্রসঙ্গ তুলে ধরার পাক চেষ্টার নিন্দা করেন লেখি। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ভারতের বিরুদ্ধে মিথ্যা এবং বিদ্বেষপূর্ণ প্রচারের জন্য সিআইসিএ প্ল্যাটফর্মের অপব্যবহার করেছে ইসলামাবাদ। জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখ ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ ছিল এবং থাকবে বলে জানানোর পাশাপাশি ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে মন্তব্য করার অধিকার পাকিস্তানের নেই বলে হুঁশিয়ারি দেন।

কয়েকদিন আগে কাশ্মীরের মাটিতে দাঁড়িয়ে পাকিস্তানকে কড়া বার্তা দিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। কাশ্মীর নিয়ে ইসলামাবাদের সঙ্গে সমস্ত ধরনের আলোচনার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেন তিনি। যারা দেশে অস্থিরতা সৃষ্টি করছে, তাদের সঙ্গে কোনও আলোচনা কেন্দ্রীয় সরকার করবে না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। সেই সঙ্গে পাক মদদে সীমান্তের ওপার থেকে মাদক পাচারেরও অভিযোগ করেন। এরপরেই সিআইসিএ মঞ্চ থেকে পাকিস্তানকে কড়া বার্তা দিলেন পররাষ্ট্র মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে একতার ডাক ভারতের

প্রকাশ: ০২:০৫:২৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৫ অক্টোবর ২০২২

পাকিস্তান সহ সমস্ত প্রতিবেশীর সঙ্গে সুসম্পর্ক রাখার ব্যাপারে আগ্রহী ভারত। কাজাখস্তানের আস্তানায় কনফারেন্স অন ইন্টারাকশন অ্যান্ড কনফিডেন্স বিল্ডিং মেজারস ইন এশিয়া (সিআইসিএ) বক্তব্য রাখতে গিয়ে এ কথা জানিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী মিনাক্ষী লেখি। একইসাথে ভারতের সঙ্গে অনুকূল সম্পর্ক স্থাপনে প্রয়োজনীয় পরিবেশ তৈরি করার জন্য ইসলামবাদকেই উদ্যোগ নিতে হবে বলে স্পষ্ট জানিয়ে দেন মোদী মন্ত্রীসভার গুরুত্বপূর্ণ এই সদস্য।

এর আগে সিআইসিএ-এর ষষ্ঠ সম্মেলনে বক্তব্য রাখতে গিয়ে লেখি পাকিস্তানের কড়া সমালোচনা করেন। ইসলামবাদ বিশ্ব সন্ত্রাসবাদের কেন্দ্রস্থল বলেও অভিযোগ করেন। সেই সঙ্গে ভারতে সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপের মদতদাতা হিসেবে পাকিস্তানকে কাঠগড়ায় দাঁড় করান তিনি। সন্ত্রাসবাদকে উৎসাহ দিতে পাক সরকার প্রচুর পরিমাণে অর্থ বিনিয়োগ করছে বলেও অভিযোগ করেন পররাষ্ট্র দফতরের প্রতিমন্ত্রী।

তবে, ইসলামাবাদের সঙ্গে নয়াদিল্লি যে সুসম্পর্ক গড়ে তুলতে চায় তাও স্পষ্ট করেন মিনাক্ষী লেখি। সম্পর্কের উন্নতির জন্য ইসলামাবাদের কোর্টেই বল ঠেলে দেন তিনি। আর সেই সঙ্গে বিশ্বাসযোগ্যতা গড়ে তোলার জন্যও পাকিস্তানের প্রতি বার্তা দেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী।

পাকিস্তানকে অবিলম্বে ভারত-বিরোধী আন্তঃসীমান্ত সন্ত্রাসবাদ বন্ধ করার পরামর্শ দেওয়ার পাশাপাশি সেই সঙ্গে পাক সীমানা এলাকায় যে সমস্ত জঙ্গি ঘাঁটি আছে, সেগুলোও ভেঙে দেওয়ার জন্য বার্তা দেন তিনি। ইসলামাবাদের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ করেন। পাক অধিকৃত কাশ্মীরে মানবাধিকার লঙ্ঘনের যে অভিযোগ ইসলামাবাদের বিরুদ্ধে উঠছে, তা শীঘ্রই বন্ধ করতে হবে বলে জানান।

কাজাখস্তানের আস্তানায় সিআইসিএ- সম্মলেন পাকিস্তানের কাশ্মীর প্রসঙ্গ তুলে ধরার পাক চেষ্টার নিন্দা করেন লেখি। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ভারতের বিরুদ্ধে মিথ্যা এবং বিদ্বেষপূর্ণ প্রচারের জন্য সিআইসিএ প্ল্যাটফর্মের অপব্যবহার করেছে ইসলামাবাদ। জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখ ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ ছিল এবং থাকবে বলে জানানোর পাশাপাশি ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে মন্তব্য করার অধিকার পাকিস্তানের নেই বলে হুঁশিয়ারি দেন।

কয়েকদিন আগে কাশ্মীরের মাটিতে দাঁড়িয়ে পাকিস্তানকে কড়া বার্তা দিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। কাশ্মীর নিয়ে ইসলামাবাদের সঙ্গে সমস্ত ধরনের আলোচনার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেন তিনি। যারা দেশে অস্থিরতা সৃষ্টি করছে, তাদের সঙ্গে কোনও আলোচনা কেন্দ্রীয় সরকার করবে না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। সেই সঙ্গে পাক মদদে সীমান্তের ওপার থেকে মাদক পাচারেরও অভিযোগ করেন। এরপরেই সিআইসিএ মঞ্চ থেকে পাকিস্তানকে কড়া বার্তা দিলেন পররাষ্ট্র মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক