০৯:২৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সর্বজনীন ঐক্যের বাহক ভারতের জি২০ সভাপতিত্ব

আগামী এক বছরের জন্য জি-২০-র সভাপতিত্ব থাকবে ভারতের হাতে। এরই ধারাবাহিকতায় আজ জি-২০র সভাপতিত্ব গ্রহণ করছে দক্ষিণ এশিয়ার দেশটি। জলবায়ু পরিবর্তন, আর্থিক মন্দা, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াই সহ একাধিক বৈশ্বিক প্রতিবন্ধকতার বিরুদ্ধেই নজর দেওয়া হবে বলে এরই মাঝে জানানো হয়েছে ভারতের তরফে।

জানা গিয়েছে, আগামী এক বছরের সভাপতিত্বকালে ভারত মোট ২০০টি বৈঠক করবে। এরমধ্যে প্রথম বৈঠকটি চলতি সপ্তাহেই উদয়পুরে হবে। আগামী বছর ৯ ও ১০ সেপ্টেম্বর দিল্লিতে জি-২০ সম্মেলন হবে।

চলতি মাসের ১৬ নভেম্বর ইন্দোনেশিয়ার বালিতে জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনের সমাপ্তি অনুষ্ঠানে প্রতীকীভাবে ভারতের হাতে জি-২০-র সভাপতিত্ব তুলে দেওয়া হয়েছিল। আজ আনুষ্ঠানিকভাবে ভারতের হাতে সভাপতিত্বের দায়িত্ব তুলে দেওয়া হবে। কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছে, জলবায়ু পরিবর্তন, আর্থিক মন্দা সহ একাধিক বিষয়ে জোর দেওয়া হবে। পাশাপাশি সরকার জলবায়ু ও বিপর্যয় প্রতিরোধক পরিকাঠামো তৈরি ও ঋণের জন্য বিশেষ ফান্ডও তৈরি করা হবে।

কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছে, জি-২০র সভাপতিত্ব পাওয়ার গৌরবকে তুলে ধরতে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের ১০০টি স্মৃতিস্তম্ভ, যার মধ্যে ইউনেসকোর হেরিটেজ সাইটগুলোও থাকবে, সেখানে এক সপ্তাহের জন্য জি-২০ প্রতীক আলোকসজ্জার মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলা হবে।

গত মাসেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জি-২০-র লোগো বা প্রতীক ও থিমের উন্মোচন করেন। এবারের জি-২০-র লোগো হল একটি পদ্ম ফুল ও পৃথিবী। অন্যদিকে, জি-২০ সম্মেলনের এবারের থিম হল “ওয়ান আর্থ, ওয়ান ফ্যামিলি, ওয়ান ফিউচার”। ভারত যে “বাসুদেব কুটুম্বকম” মন্ত্র অনুসরণ করে, তার অনুপ্রেরণাতেই জি-২০ র থিম বেছে নেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, জি-২০ হল উন্নত ও উন্নয়নশীল অর্থনীতির দেশগুলির ফোরাম। জি-২০ র সদস্য দেশগুলি হল ভারত, আর্জেন্টিনা, অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল, কানাডা, চিন, ফ্রান্স, জার্মানি, ইন্দোনেশিয়া, ইতালি, জাপান, রিপাবলিক অব কোরিয়া, মেক্সিকো, রাশিয়া, সৌদি আরব, দক্ষিণ আফ্রিকা, ব্রিটেন, আমেরিকা ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন। জি-২০ গোষ্ঠীর দেশগুলি বৈশ্বিক জিডিপির প্রায় ৮৫ শতাংশের নিয়ন্ত্রক। বৈশ্বিক বাণিজ্যেরও ৭৫ শতাংশের বেশি নিয়ন্ত্রণ করে এই গোষ্ঠীর সদস্যরা। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

সর্বজনীন ঐক্যের বাহক ভারতের জি২০ সভাপতিত্ব

প্রকাশ: ০৭:৪৫:১৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১ ডিসেম্বর ২০২২

আগামী এক বছরের জন্য জি-২০-র সভাপতিত্ব থাকবে ভারতের হাতে। এরই ধারাবাহিকতায় আজ জি-২০র সভাপতিত্ব গ্রহণ করছে দক্ষিণ এশিয়ার দেশটি। জলবায়ু পরিবর্তন, আর্থিক মন্দা, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াই সহ একাধিক বৈশ্বিক প্রতিবন্ধকতার বিরুদ্ধেই নজর দেওয়া হবে বলে এরই মাঝে জানানো হয়েছে ভারতের তরফে।

জানা গিয়েছে, আগামী এক বছরের সভাপতিত্বকালে ভারত মোট ২০০টি বৈঠক করবে। এরমধ্যে প্রথম বৈঠকটি চলতি সপ্তাহেই উদয়পুরে হবে। আগামী বছর ৯ ও ১০ সেপ্টেম্বর দিল্লিতে জি-২০ সম্মেলন হবে।

চলতি মাসের ১৬ নভেম্বর ইন্দোনেশিয়ার বালিতে জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনের সমাপ্তি অনুষ্ঠানে প্রতীকীভাবে ভারতের হাতে জি-২০-র সভাপতিত্ব তুলে দেওয়া হয়েছিল। আজ আনুষ্ঠানিকভাবে ভারতের হাতে সভাপতিত্বের দায়িত্ব তুলে দেওয়া হবে। কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছে, জলবায়ু পরিবর্তন, আর্থিক মন্দা সহ একাধিক বিষয়ে জোর দেওয়া হবে। পাশাপাশি সরকার জলবায়ু ও বিপর্যয় প্রতিরোধক পরিকাঠামো তৈরি ও ঋণের জন্য বিশেষ ফান্ডও তৈরি করা হবে।

কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছে, জি-২০র সভাপতিত্ব পাওয়ার গৌরবকে তুলে ধরতে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের ১০০টি স্মৃতিস্তম্ভ, যার মধ্যে ইউনেসকোর হেরিটেজ সাইটগুলোও থাকবে, সেখানে এক সপ্তাহের জন্য জি-২০ প্রতীক আলোকসজ্জার মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলা হবে।

গত মাসেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জি-২০-র লোগো বা প্রতীক ও থিমের উন্মোচন করেন। এবারের জি-২০-র লোগো হল একটি পদ্ম ফুল ও পৃথিবী। অন্যদিকে, জি-২০ সম্মেলনের এবারের থিম হল “ওয়ান আর্থ, ওয়ান ফ্যামিলি, ওয়ান ফিউচার”। ভারত যে “বাসুদেব কুটুম্বকম” মন্ত্র অনুসরণ করে, তার অনুপ্রেরণাতেই জি-২০ র থিম বেছে নেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, জি-২০ হল উন্নত ও উন্নয়নশীল অর্থনীতির দেশগুলির ফোরাম। জি-২০ র সদস্য দেশগুলি হল ভারত, আর্জেন্টিনা, অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল, কানাডা, চিন, ফ্রান্স, জার্মানি, ইন্দোনেশিয়া, ইতালি, জাপান, রিপাবলিক অব কোরিয়া, মেক্সিকো, রাশিয়া, সৌদি আরব, দক্ষিণ আফ্রিকা, ব্রিটেন, আমেরিকা ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন। জি-২০ গোষ্ঠীর দেশগুলি বৈশ্বিক জিডিপির প্রায় ৮৫ শতাংশের নিয়ন্ত্রক। বৈশ্বিক বাণিজ্যেরও ৭৫ শতাংশের বেশি নিয়ন্ত্রণ করে এই গোষ্ঠীর সদস্যরা। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক