০৯:৩২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভারতের ইসিতে জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী

দুই দিনের সফরে দিল্লি এসেছেন জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আনালেনা বেয়ারবক। সোমবার (৫ ডিসেম্বর) সকালে দিল্লি বিমানবন্দরে নামার পরেই ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শংকরের সঙ্গে দীর্ঘ বৈঠক হয় তার। বৈঠক শেষে একসঙ্গে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন দুই মন্ত্রী। ডয়চে ভেলের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রথমে জয়শংকর ও পরে বেয়ারবক বৈঠকের বিষয়বস্তু ও তাৎপর্য ব্যাখ্যা করেন। দুইজনই জানিয়েছেন, বৈঠক ফলপ্রসূ হয়েছে। বস্তুত, বিবৃতি দেওয়ার পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নও গ্রহণ করেছেন দুই মন্ত্রী।

বেয়ারবক জানিয়েছেন, ঐতিহাসিকভাবে ভারত জার্মানির সহজাত সঙ্গী। দীর্ঘদিন ধরে দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্যসহ একাধিক সম্পর্ক আছে। এবার সেই সম্পর্ক আরও বড় মাত্রা পাবে।

জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ইউরোপ তো বটেই, ভারতও সমস্যায় পড়ছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ হচ্ছে। কীভাবে এর মোকাবিলা করা যায়, তা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তন, বিকল্প শক্তির উৎস, বাণিজ্য সম্পর্ক নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা হয়েছে। দুই দেশই এই বিষয়ে একযোগে কাজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বস্তুত, মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) দিল্লির প্রান্তে হরিয়ানার একটি গ্রামে বিকল্প বিদ্যুতের একটি প্রকল্প দেখতে যাবেন জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এ দিনের আলোচনায় ভিসা সমস্যাসহ একাধিক প্রশাসনিক সমস্যার প্রসঙ্গও উঠেছে।

দুই মন্ত্রীই জানিয়েছেন, কীভাবে এই সমস্যার সমাধান করা যায়, তা নিয়ে কথা হয়েছে। এছাড়াও বেয়ারবকের সফর নিয়ে জার্মানি যে প্রেস বিবৃতি জারি করেছিল, তাতে জানানো হয়েছে, ইউক্রেন যুদ্ধের আবহে ভারতের সঙ্গে রাশিয়া ও চীনের সম্পর্ক নিয়েও বৈঠকে আলোচনা হবে।

জয়শংকর জানিয়েছেন, ইউক্রেন যুদ্ধ ও এশিয়া প্যাসিফিকের সংকট নিয়ে আলোচনা হয়েছে। ভারত নিজের কূটনৈতিক অবস্থান জানিয়েছে।

বস্তুত, জার্মান সংবাদ সংস্থা এআরডি এর এক সাংবাদিক জয়শংকরের কাছে জানতে চেয়েছিলেন, ইউক্রেন যুদ্ধ শুরু হওয়ার পরে ও ইউরোপ রাশিয়ার উপর একাধিক নিষেধাজ্ঞা ঘোষণার পরেও ভারত কেন রাশিয়ার কাছ থেকে তেল কিনেছে।

উত্তরে জয়শংকর তথ্য দিয়ে জানিয়েছেন, এই পরিস্থিতিতে ভারত রাশিয়ার কাছ থেকে যে পরিমাণ তেল কিনেছে, ইউরোপ তার চেয়ে কয়েক গুণ বেশি কিনেছে নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও। এছাড়াও ইউরোপ রাশিয়ার কাছ থেকে গ্যাস নিয়েছে।

জয়শংকর জানিয়েছেন, ভারত বিশ্বের কথা অবশ্যই ভাববে, কিন্তু তাদের নিজের দেশের প্রয়োজন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। সে বিষয়ে ভারত কোনোরকম আপস করবে না।

এ দিন জয়শংকরের সঙ্গে বৈঠকের পর দিল্লির মান্ডি হাউস স্টেশনে যান জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। সেখান থেকে মেট্রোয় তিনি চাঁদনি চক যান। সেখানে চাঁদনি চকের দোকান ঘুরে দেখেন। মেট্রো ভ্রমণে তার সঙ্গে ছিলেন জার্মান সরকারি কর্মকর্তা ও সাংবাদিকেরা।

মঙ্গলবার বেয়ারবক যান ভারতের নির্বাচন কমিশনে। সেখান থেকে হরিয়ানার খড়িতে অপ্রচলিত বিদ্যুতের প্রকল্প দেখে বার্লিনে ফিরে যাওয়ার কথা তার। ভারত এবছর ‘জি-২০’ এর সভাপতিত্ব পেয়েছে। ফলে ফের তিনি ভারতে আসবেন বলে জানিয়েছেন বেয়ারবক।

জার্মান সরকার সূত্রে জানা গেছে, আগামী বছর অন্তত দুইবার জার্মান চ্যান্সেলর শলৎস ভারতে আসতে পারেন। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

ভারতের ইসিতে জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশ: ০১:১৯:২৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর ২০২২

দুই দিনের সফরে দিল্লি এসেছেন জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আনালেনা বেয়ারবক। সোমবার (৫ ডিসেম্বর) সকালে দিল্লি বিমানবন্দরে নামার পরেই ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শংকরের সঙ্গে দীর্ঘ বৈঠক হয় তার। বৈঠক শেষে একসঙ্গে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন দুই মন্ত্রী। ডয়চে ভেলের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রথমে জয়শংকর ও পরে বেয়ারবক বৈঠকের বিষয়বস্তু ও তাৎপর্য ব্যাখ্যা করেন। দুইজনই জানিয়েছেন, বৈঠক ফলপ্রসূ হয়েছে। বস্তুত, বিবৃতি দেওয়ার পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নও গ্রহণ করেছেন দুই মন্ত্রী।

বেয়ারবক জানিয়েছেন, ঐতিহাসিকভাবে ভারত জার্মানির সহজাত সঙ্গী। দীর্ঘদিন ধরে দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্যসহ একাধিক সম্পর্ক আছে। এবার সেই সম্পর্ক আরও বড় মাত্রা পাবে।

জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ইউরোপ তো বটেই, ভারতও সমস্যায় পড়ছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ হচ্ছে। কীভাবে এর মোকাবিলা করা যায়, তা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তন, বিকল্প শক্তির উৎস, বাণিজ্য সম্পর্ক নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা হয়েছে। দুই দেশই এই বিষয়ে একযোগে কাজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বস্তুত, মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) দিল্লির প্রান্তে হরিয়ানার একটি গ্রামে বিকল্প বিদ্যুতের একটি প্রকল্প দেখতে যাবেন জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এ দিনের আলোচনায় ভিসা সমস্যাসহ একাধিক প্রশাসনিক সমস্যার প্রসঙ্গও উঠেছে।

দুই মন্ত্রীই জানিয়েছেন, কীভাবে এই সমস্যার সমাধান করা যায়, তা নিয়ে কথা হয়েছে। এছাড়াও বেয়ারবকের সফর নিয়ে জার্মানি যে প্রেস বিবৃতি জারি করেছিল, তাতে জানানো হয়েছে, ইউক্রেন যুদ্ধের আবহে ভারতের সঙ্গে রাশিয়া ও চীনের সম্পর্ক নিয়েও বৈঠকে আলোচনা হবে।

জয়শংকর জানিয়েছেন, ইউক্রেন যুদ্ধ ও এশিয়া প্যাসিফিকের সংকট নিয়ে আলোচনা হয়েছে। ভারত নিজের কূটনৈতিক অবস্থান জানিয়েছে।

বস্তুত, জার্মান সংবাদ সংস্থা এআরডি এর এক সাংবাদিক জয়শংকরের কাছে জানতে চেয়েছিলেন, ইউক্রেন যুদ্ধ শুরু হওয়ার পরে ও ইউরোপ রাশিয়ার উপর একাধিক নিষেধাজ্ঞা ঘোষণার পরেও ভারত কেন রাশিয়ার কাছ থেকে তেল কিনেছে।

উত্তরে জয়শংকর তথ্য দিয়ে জানিয়েছেন, এই পরিস্থিতিতে ভারত রাশিয়ার কাছ থেকে যে পরিমাণ তেল কিনেছে, ইউরোপ তার চেয়ে কয়েক গুণ বেশি কিনেছে নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও। এছাড়াও ইউরোপ রাশিয়ার কাছ থেকে গ্যাস নিয়েছে।

জয়শংকর জানিয়েছেন, ভারত বিশ্বের কথা অবশ্যই ভাববে, কিন্তু তাদের নিজের দেশের প্রয়োজন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। সে বিষয়ে ভারত কোনোরকম আপস করবে না।

এ দিন জয়শংকরের সঙ্গে বৈঠকের পর দিল্লির মান্ডি হাউস স্টেশনে যান জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। সেখান থেকে মেট্রোয় তিনি চাঁদনি চক যান। সেখানে চাঁদনি চকের দোকান ঘুরে দেখেন। মেট্রো ভ্রমণে তার সঙ্গে ছিলেন জার্মান সরকারি কর্মকর্তা ও সাংবাদিকেরা।

মঙ্গলবার বেয়ারবক যান ভারতের নির্বাচন কমিশনে। সেখান থেকে হরিয়ানার খড়িতে অপ্রচলিত বিদ্যুতের প্রকল্প দেখে বার্লিনে ফিরে যাওয়ার কথা তার। ভারত এবছর ‘জি-২০’ এর সভাপতিত্ব পেয়েছে। ফলে ফের তিনি ভারতে আসবেন বলে জানিয়েছেন বেয়ারবক।

জার্মান সরকার সূত্রে জানা গেছে, আগামী বছর অন্তত দুইবার জার্মান চ্যান্সেলর শলৎস ভারতে আসতে পারেন। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক