১২:২৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

এশিয়ার বৃহত্তম হেলিকপ্টার কারখানার উদ্বোধনে মোদী

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী চলতি সপ্তাহের সোমবার একটি হেলিকপ্টার তৈরির কারখানার উদ্বোধন করবেন বলে জানা গিয়েছে। কর্নাটকের তুমাকুরুতে এই কারখানাটি গড়ে তুলেছে হিন্দুস্তান অ্যারোনটিক্স লিমিটেড। প্রসঙ্গত, এটি এশিয়ার বৃহত্তম হেলিকপ্টার তৈরির কারখানা হতে চলেছে।

প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর বলছে, “এটি এশিয়ার বৃহত্তম কারখানা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করতে চলেছে এবং প্রাথমিকভাবে লাইট ইউটিলিটি হেলিকপ্টার তৈরি করবে এই কারখানা।” লাইট ইউটিলিটি হেলিকপ্টার হল একটি দেশীয়ভাবে ডিজাইন করা হেলিকপ্টার মডেল।

কেন্দ্রীয় সরকার সূত্রে জানা গিয়েছে, ভবিষ্যতে এখানে লাইট কমব্যাট হেলিকপ্টার এবং ইন্ডিয়ান মাল্টিরোল হেলিকপ্টারও তৈরি হবে। শুধু তাই নয় হেলিকপ্টার মেরামতির কাজও করবে এই কারখানা। জানা গেছে, প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং এবং মন্ত্রকের অন্যান্য ঊর্ধ্বতন আধিকারিকরাও এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন। আগামী ২০ বছরে ১০০০ এরও বেশি কপ্টার তৈরির লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে বলে কেন্দ্রীয় সরকার সূত্রে জানা গেছে। সরকার আশাবাদী এই প্রকল্পের মাধ্যমে ৬০০০ মানুষের কর্মসংস্থান হবে।

সোমবার আরও অনেকগুলো সরকারি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে কর্নাটকে। যেমন: প্রধানমন্ত্রী তুমাকুরু ইন্ডাস্ট্রিয়াল টাউনশিপের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন এদিন এর সঙ্গে দুটি জল সরবরাহ প্রকল্পেরও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করার কথা প্রধানমন্ত্রী মোদীর।

জানা গিয়েছে, কর্নাটকের তুমাকুরুর টিপটুর এবং চিককানায়কানাহল্লিতে দুটি জলজীবন মিশন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী মোদি। টিপটুর মাল্টি-ভিলেজ পানীয় জল সরবরাহ প্রকল্পটি ৪৩০ কোটি টাকারও বেশি ব্যয়ে নির্মিত হবে।

অন্যদিকে, চিককানায়কানাহল্লির প্রকল্পটির মাধ্যমে অজস্র গ্রামে জল সরবরাহ করা সম্ভব হবে। প্রকল্পটি প্রায় ১১৫ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হবে, এমনটাই জানা গিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর সূত্রে। প্রকল্পগুলোর ফলে এই অঞ্চলের বসবাসকারী মানুষরা সহজেই বিশুদ্ধ পানীয় জল পাবে। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

এশিয়ার বৃহত্তম হেলিকপ্টার কারখানার উদ্বোধনে মোদী

প্রকাশ: ০৮:১৭:৫৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী চলতি সপ্তাহের সোমবার একটি হেলিকপ্টার তৈরির কারখানার উদ্বোধন করবেন বলে জানা গিয়েছে। কর্নাটকের তুমাকুরুতে এই কারখানাটি গড়ে তুলেছে হিন্দুস্তান অ্যারোনটিক্স লিমিটেড। প্রসঙ্গত, এটি এশিয়ার বৃহত্তম হেলিকপ্টার তৈরির কারখানা হতে চলেছে।

প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর বলছে, “এটি এশিয়ার বৃহত্তম কারখানা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করতে চলেছে এবং প্রাথমিকভাবে লাইট ইউটিলিটি হেলিকপ্টার তৈরি করবে এই কারখানা।” লাইট ইউটিলিটি হেলিকপ্টার হল একটি দেশীয়ভাবে ডিজাইন করা হেলিকপ্টার মডেল।

কেন্দ্রীয় সরকার সূত্রে জানা গিয়েছে, ভবিষ্যতে এখানে লাইট কমব্যাট হেলিকপ্টার এবং ইন্ডিয়ান মাল্টিরোল হেলিকপ্টারও তৈরি হবে। শুধু তাই নয় হেলিকপ্টার মেরামতির কাজও করবে এই কারখানা। জানা গেছে, প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং এবং মন্ত্রকের অন্যান্য ঊর্ধ্বতন আধিকারিকরাও এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন। আগামী ২০ বছরে ১০০০ এরও বেশি কপ্টার তৈরির লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে বলে কেন্দ্রীয় সরকার সূত্রে জানা গেছে। সরকার আশাবাদী এই প্রকল্পের মাধ্যমে ৬০০০ মানুষের কর্মসংস্থান হবে।

সোমবার আরও অনেকগুলো সরকারি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে কর্নাটকে। যেমন: প্রধানমন্ত্রী তুমাকুরু ইন্ডাস্ট্রিয়াল টাউনশিপের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন এদিন এর সঙ্গে দুটি জল সরবরাহ প্রকল্পেরও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করার কথা প্রধানমন্ত্রী মোদীর।

জানা গিয়েছে, কর্নাটকের তুমাকুরুর টিপটুর এবং চিককানায়কানাহল্লিতে দুটি জলজীবন মিশন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী মোদি। টিপটুর মাল্টি-ভিলেজ পানীয় জল সরবরাহ প্রকল্পটি ৪৩০ কোটি টাকারও বেশি ব্যয়ে নির্মিত হবে।

অন্যদিকে, চিককানায়কানাহল্লির প্রকল্পটির মাধ্যমে অজস্র গ্রামে জল সরবরাহ করা সম্ভব হবে। প্রকল্পটি প্রায় ১১৫ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হবে, এমনটাই জানা গিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর সূত্রে। প্রকল্পগুলোর ফলে এই অঞ্চলের বসবাসকারী মানুষরা সহজেই বিশুদ্ধ পানীয় জল পাবে। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক