০১:৫০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

এক নজরে দ্বাদশ বিশ্ব হিন্দি সম্মেলন

ভবিষ্যতে হিন্দির মহাকুম্ভ হয়ে উঠবে বিশ্ব ‘হিন্দি’ সম্মেলন। এই মন্তব্য করলেন ভারতের বিদেশমন্ত্রী ডঃ এস জয়শঙ্কর। একইসঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, হিন্দি ভাষাকে বিশ্ব ভাষা করার পবিত্র সংকল্পে নিযুক্ত হিন্দি প্রেমীদের একটি গুরুত্বপূর্ণ মঞ্চ প্রদান করবে বিশ্ব হিন্দি সম্মেলন।

শুক্রবার ফিজি-র নাদিতে আয়োজিত তিন দিনব্যাপী দ্বাদশ বিশ্ব হিন্দি সম্মেলনের সমাপনী অনুষ্ঠানে বিদেশমন্ত্রী ডঃ এস জয়শঙ্কর বলেছেন, হিন্দিকে বিশ্বভাষা করার লক্ষ্য অর্জনের জন্য সমস্ত হিন্দি প্রেমিকদের একসঙ্গে কাজ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

উল্লেখ্য, ৩০টিরও বেশি দেশের এক হাজারেরও বেশি পণ্ডিত ও সাহিত্যিক এই সম্মেলনে অংশ নেন। সমাপনী অনুষ্ঠানে ফিজির উপ-প্রধানমন্ত্রী বিমান প্রসাদও উপস্থিত ছিলেন। সমাপনী অনুষ্ঠানে দেশ-বিদেশে হিন্দির প্রচার, প্রসার ও উন্নয়নে কাজ করা ২৫ জন পণ্ডিত ও সংস্থাকেও সম্মানিত করা হয়।

বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর বলেছেন, “আমাদের উচিত একবার ভারতে এবং একবার বিদেশে এই সম্মেলনের আয়োজন করা, যাতে সমস্ত হিন্দি প্রেমিক এবং যারা হিন্দি ভাষা প্রচার করতে চায় তারা একটি সুযোগ পায়। আমাদের লক্ষ্য হিন্দিকে কীভাবে একটি বিশ্বব্যাপী ভাষা করা যায়।”

এস জয়শঙ্কর আরও বলেছেন, আমাদের কাছে অনেক প্রশ্ন এসেছে, যে সামনের পথ কী হবে? আমি মনে করি সকলের প্রত্যাশায় এই সম্মেলন হয়ে উঠবে হিন্দির একটি ‘মহাকুম্ভ’, যেখানে সারা বিশ্বের মানুষ আসবেন।

ইভেন্টের গুরুত্বপূর্ণ তথ্যাবলী এক নজরে:

১। সম্মেলনে ৩১ টির বেশি দেশের প্রায় ১০০০ জন অংশগ্রহণকারী যোগ দিয়েছিলেন, যার মধ্যে সারা বিশ্বের পণ্ডিত এবং বিশেষজ্ঞরা হিন্দি ভাষার সাথে সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয়ে গভীর আলোচনায় নিযুক্ত ছিলেন।

২। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্করের নেতৃত্বে ভারতীয় প্রতিনিধি দলে ছিলেন পররাষ্ট্র ও সংসদ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ভি মুরালিধরন; স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অজয় কুমার মিশ্র; সংসদ সদস্য; এবং ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

৩। ফিজিয়ান সরকারের সর্বোচ্চ স্তরে প্রতিনিধিত্ব করা হয়েছিল, রাষ্ট্রপতি রাতু উইলিয়াম কাটোনিভেরে, প্রধানমন্ত্রী সিটিভেনি রাবুকা এবং অন্যান্য ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তাদের সাথে উপস্থিত ছিলেন তিনজন উপ-প্রধানমন্ত্রী।

৪। সম্মেলন, যা যৌথভাবে রাষ্ট্রপতি কাটোনিভের এবং ইএএম জয়শঙ্কর দ্বারা উদ্বোধন করা হয়েছিল, ফিজি সরকার কর্তৃক একটি স্মারক ডাকটিকিট প্রকাশ করা হয়েছিল। এ উপলক্ষে একটি বিশেষ সমরিকা ও আরও পাঁচটি প্রকাশনাও প্রকাশিত হয়।

৫। সম্মেলনের মূল থিম ছিল “হিন্দি: ট্র্যাডিশনাল নলেজ থেকে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স” যা একটি পূর্ণাঙ্গ অধিবেশনে আলোচনা করা হয়েছিল। হিন্দি ভাষার সাথে সম্পর্কিত বিভিন্ন উপ-থিমের উপর আরও দশটি একাডেমিক সেশন অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

৬। সম্মেলনের সময়, দক্ষিণ এবং উত্তর পূর্ব ভারত থেকে অংশগ্রহণের উপর বিশেষ জোর দেওয়া হয়েছিল, যার মধ্যে সম্মানিত ব্যক্তিদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল। হিন্দি প্রচার ও প্রচারের জন্য সম্মেলনে ভারত থেকে মোট 12 জন হিন্দি পণ্ডিত এবং বিদেশ থেকে ১৯ জন পণ্ডিত, পাশাপাশি ভারত ও বিদেশ থেকে 2টি প্রতিষ্ঠানকে অভিনন্দনের জন্য নির্বাচিত করা হয়েছিল।

৭। সম্মেলনের সমাপনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন এমওএস মুরালিধরন, যিনি সম্মেলনের আয়োজক কমিটির চেয়ারপারসন ছিলেন। অনুষ্ঠানে তিনি সম্মেলনের ফলাফল বিবৃতিও পাঠ করেন।

৮। সমাপনী অনুষ্ঠানের অন্যান্য হাইলাইটের মধ্যে ছিল ফিজিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী বিমান প্রসাদ কর্তৃক প্রদত্ত হিন্দিতে বক্তৃতা, ফিজির সংসদে হিন্দিতে বক্তৃতা দেওয়ার অনুমতি সহ হিন্দি প্রচারের জন্য ফিজি কর্তৃক গৃহীত পদক্ষেপগুলি তুলে ধরে।

৯। সম্মেলনে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল ফর কালচারাল রিলেশনস (আইসিসিআর) এবং ফিজিয়ান সরকার কর্তৃক বিশেষ সাংস্কৃতিক পরিবেশনার সংস্থাও দেখা যায় এবং ফিজিতে গিরমিটিয়াদের গল্পের উপর সম্মেলনের সাইডলাইনে একটি বিশেষ প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়।

১০। জয়শঙ্কর ২০২২ সালের অক্টোবরে নয়াদিল্লিতে এই সম্মেলনের ওয়েবসাইট এবং লোগো উন্মোচন করেছিলেন। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

এক নজরে দ্বাদশ বিশ্ব হিন্দি সম্মেলন

প্রকাশ: ১০:০৪:২৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

ভবিষ্যতে হিন্দির মহাকুম্ভ হয়ে উঠবে বিশ্ব ‘হিন্দি’ সম্মেলন। এই মন্তব্য করলেন ভারতের বিদেশমন্ত্রী ডঃ এস জয়শঙ্কর। একইসঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, হিন্দি ভাষাকে বিশ্ব ভাষা করার পবিত্র সংকল্পে নিযুক্ত হিন্দি প্রেমীদের একটি গুরুত্বপূর্ণ মঞ্চ প্রদান করবে বিশ্ব হিন্দি সম্মেলন।

শুক্রবার ফিজি-র নাদিতে আয়োজিত তিন দিনব্যাপী দ্বাদশ বিশ্ব হিন্দি সম্মেলনের সমাপনী অনুষ্ঠানে বিদেশমন্ত্রী ডঃ এস জয়শঙ্কর বলেছেন, হিন্দিকে বিশ্বভাষা করার লক্ষ্য অর্জনের জন্য সমস্ত হিন্দি প্রেমিকদের একসঙ্গে কাজ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

উল্লেখ্য, ৩০টিরও বেশি দেশের এক হাজারেরও বেশি পণ্ডিত ও সাহিত্যিক এই সম্মেলনে অংশ নেন। সমাপনী অনুষ্ঠানে ফিজির উপ-প্রধানমন্ত্রী বিমান প্রসাদও উপস্থিত ছিলেন। সমাপনী অনুষ্ঠানে দেশ-বিদেশে হিন্দির প্রচার, প্রসার ও উন্নয়নে কাজ করা ২৫ জন পণ্ডিত ও সংস্থাকেও সম্মানিত করা হয়।

বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর বলেছেন, “আমাদের উচিত একবার ভারতে এবং একবার বিদেশে এই সম্মেলনের আয়োজন করা, যাতে সমস্ত হিন্দি প্রেমিক এবং যারা হিন্দি ভাষা প্রচার করতে চায় তারা একটি সুযোগ পায়। আমাদের লক্ষ্য হিন্দিকে কীভাবে একটি বিশ্বব্যাপী ভাষা করা যায়।”

এস জয়শঙ্কর আরও বলেছেন, আমাদের কাছে অনেক প্রশ্ন এসেছে, যে সামনের পথ কী হবে? আমি মনে করি সকলের প্রত্যাশায় এই সম্মেলন হয়ে উঠবে হিন্দির একটি ‘মহাকুম্ভ’, যেখানে সারা বিশ্বের মানুষ আসবেন।

ইভেন্টের গুরুত্বপূর্ণ তথ্যাবলী এক নজরে:

১। সম্মেলনে ৩১ টির বেশি দেশের প্রায় ১০০০ জন অংশগ্রহণকারী যোগ দিয়েছিলেন, যার মধ্যে সারা বিশ্বের পণ্ডিত এবং বিশেষজ্ঞরা হিন্দি ভাষার সাথে সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয়ে গভীর আলোচনায় নিযুক্ত ছিলেন।

২। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্করের নেতৃত্বে ভারতীয় প্রতিনিধি দলে ছিলেন পররাষ্ট্র ও সংসদ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ভি মুরালিধরন; স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অজয় কুমার মিশ্র; সংসদ সদস্য; এবং ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

৩। ফিজিয়ান সরকারের সর্বোচ্চ স্তরে প্রতিনিধিত্ব করা হয়েছিল, রাষ্ট্রপতি রাতু উইলিয়াম কাটোনিভেরে, প্রধানমন্ত্রী সিটিভেনি রাবুকা এবং অন্যান্য ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তাদের সাথে উপস্থিত ছিলেন তিনজন উপ-প্রধানমন্ত্রী।

৪। সম্মেলন, যা যৌথভাবে রাষ্ট্রপতি কাটোনিভের এবং ইএএম জয়শঙ্কর দ্বারা উদ্বোধন করা হয়েছিল, ফিজি সরকার কর্তৃক একটি স্মারক ডাকটিকিট প্রকাশ করা হয়েছিল। এ উপলক্ষে একটি বিশেষ সমরিকা ও আরও পাঁচটি প্রকাশনাও প্রকাশিত হয়।

৫। সম্মেলনের মূল থিম ছিল “হিন্দি: ট্র্যাডিশনাল নলেজ থেকে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স” যা একটি পূর্ণাঙ্গ অধিবেশনে আলোচনা করা হয়েছিল। হিন্দি ভাষার সাথে সম্পর্কিত বিভিন্ন উপ-থিমের উপর আরও দশটি একাডেমিক সেশন অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

৬। সম্মেলনের সময়, দক্ষিণ এবং উত্তর পূর্ব ভারত থেকে অংশগ্রহণের উপর বিশেষ জোর দেওয়া হয়েছিল, যার মধ্যে সম্মানিত ব্যক্তিদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল। হিন্দি প্রচার ও প্রচারের জন্য সম্মেলনে ভারত থেকে মোট 12 জন হিন্দি পণ্ডিত এবং বিদেশ থেকে ১৯ জন পণ্ডিত, পাশাপাশি ভারত ও বিদেশ থেকে 2টি প্রতিষ্ঠানকে অভিনন্দনের জন্য নির্বাচিত করা হয়েছিল।

৭। সম্মেলনের সমাপনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন এমওএস মুরালিধরন, যিনি সম্মেলনের আয়োজক কমিটির চেয়ারপারসন ছিলেন। অনুষ্ঠানে তিনি সম্মেলনের ফলাফল বিবৃতিও পাঠ করেন।

৮। সমাপনী অনুষ্ঠানের অন্যান্য হাইলাইটের মধ্যে ছিল ফিজিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী বিমান প্রসাদ কর্তৃক প্রদত্ত হিন্দিতে বক্তৃতা, ফিজির সংসদে হিন্দিতে বক্তৃতা দেওয়ার অনুমতি সহ হিন্দি প্রচারের জন্য ফিজি কর্তৃক গৃহীত পদক্ষেপগুলি তুলে ধরে।

৯। সম্মেলনে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল ফর কালচারাল রিলেশনস (আইসিসিআর) এবং ফিজিয়ান সরকার কর্তৃক বিশেষ সাংস্কৃতিক পরিবেশনার সংস্থাও দেখা যায় এবং ফিজিতে গিরমিটিয়াদের গল্পের উপর সম্মেলনের সাইডলাইনে একটি বিশেষ প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়।

১০। জয়শঙ্কর ২০২২ সালের অক্টোবরে নয়াদিল্লিতে এই সম্মেলনের ওয়েবসাইট এবং লোগো উন্মোচন করেছিলেন। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক