০৯:৫৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

লিথুয়ানিয়ায় নতুন মিশন চালু করেছে ভারত

লিথুয়ানিয়ার রাজধানী শহর ভিলনিয়াসে নতুন মিশন চালু করেছে ভারত। শুক্রবার থেকে এই পরিষেবা চালু করা হয় দেশটিতে। পরবর্তীতে এক বিবৃতিতে তথ্যটি নিশ্চিত করেছে ভারতের পররাষ্ট্র দপ্তর।

এ বিষয়ে গত ৩১ মার্চ পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর টুইটবার্তায় বলেন, “ভারতীয় দূতাবাস, ভিলনিয়াস আজকে কাজ শুরু করেছে, তা জানাতে পেরে আনন্দিত। আমাদের আবাসিক মিশন ভারত-লিথুয়ানিয়া অংশীদারিত্বকে আরও মজবুত করবে।”

বিশেষজ্ঞ মহলের ধারণা, লিথুয়ানিয়ায় ভারতীয় মিশনের কার্যকারিতা ভারতের কূটনৈতিক পদচিহ্ন প্রসারিত করতে সাহায্য করবে, রাজনৈতিক সম্পর্ক এবং কৌশলগত সহযোগিতাকে আরও গভীর করবে, দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য, বিনিয়োগ এবং অর্থনৈতিক ব্যস্ততার বৃদ্ধি সক্ষম করবে, জনগণের মধ্যে শক্তিশালী যোগাযোগ সহজতর করবে এবং বহুপাক্ষিক আকারে আরও টেকসই রাজনৈতিক প্রসারকে সক্ষম করবে। লিথুয়ানিয়ায় ভারতীয় মিশন ভারতীয় সম্প্রদায়কে আরও ভালভাবে সহায়তা করবে এবং তাদের স্বার্থ রক্ষা করবে।

উল্লেখ্য, গত ২৭ এপ্রিল, ২০২২-এ, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা লিথুয়ানিয়ায় একটি নতুন ভারতীয় মিশন খোলার অনুমোদন দিয়েছে। সেই বৈঠকের সময়, কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা বলেছিল, “ভিলনিয়াসে একটি নতুন ভারতীয় মিশন খোলার সিদ্ধান্ত ছিল আমাদের জাতীয় অগ্রাধিকার বা ‘সবকা সাথ সবকা বিকাশ’ প্রবৃদ্ধি এবং উন্নয়নের জন্য একটি অগ্রসর পদক্ষেপ। ভারতের কূটনৈতিক উপস্থিতি বৃদ্ধি করবে, অন্যান্য বিষয়ের সাথে সাথে, ভারতীয় কোম্পানিগুলির জন্য বাজারে প্রবেশাধিকার প্রদান করে এবং পণ্য ও পরিষেবাগুলির ভারতীয় রপ্তানিকে শক্তিশালী করে। আমাদের আত্মনির্ভর ভারত বা আত্মনির্ভর ভারতের লক্ষ্যের সাথে সামঞ্জস্য রেখে দেশীয় উৎপাদন ও কর্মসংস্থান বাড়ানোর ক্ষেত্রে এটি সরাসরি প্রভাব ফেলবে।”

প্রসঙ্গত, ১৯৯১ সালের ৭ সেপ্টেম্বর ভারত লিথুয়ানিয়াকে স্বীকৃতি দেয় (লাটভিয়া এবং এস্তোনিয়ার অন্যান্য বাল্টিক রাজ্যের সাথে)। দেশটি সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের সদস্য। ১৯৯২ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি লিথুয়ানিয়ার সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপিত হয়। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

লিথুয়ানিয়ায় নতুন মিশন চালু করেছে ভারত

প্রকাশ: ০৮:৪৫:৩৭ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২ এপ্রিল ২০২৩

লিথুয়ানিয়ার রাজধানী শহর ভিলনিয়াসে নতুন মিশন চালু করেছে ভারত। শুক্রবার থেকে এই পরিষেবা চালু করা হয় দেশটিতে। পরবর্তীতে এক বিবৃতিতে তথ্যটি নিশ্চিত করেছে ভারতের পররাষ্ট্র দপ্তর।

এ বিষয়ে গত ৩১ মার্চ পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর টুইটবার্তায় বলেন, “ভারতীয় দূতাবাস, ভিলনিয়াস আজকে কাজ শুরু করেছে, তা জানাতে পেরে আনন্দিত। আমাদের আবাসিক মিশন ভারত-লিথুয়ানিয়া অংশীদারিত্বকে আরও মজবুত করবে।”

বিশেষজ্ঞ মহলের ধারণা, লিথুয়ানিয়ায় ভারতীয় মিশনের কার্যকারিতা ভারতের কূটনৈতিক পদচিহ্ন প্রসারিত করতে সাহায্য করবে, রাজনৈতিক সম্পর্ক এবং কৌশলগত সহযোগিতাকে আরও গভীর করবে, দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য, বিনিয়োগ এবং অর্থনৈতিক ব্যস্ততার বৃদ্ধি সক্ষম করবে, জনগণের মধ্যে শক্তিশালী যোগাযোগ সহজতর করবে এবং বহুপাক্ষিক আকারে আরও টেকসই রাজনৈতিক প্রসারকে সক্ষম করবে। লিথুয়ানিয়ায় ভারতীয় মিশন ভারতীয় সম্প্রদায়কে আরও ভালভাবে সহায়তা করবে এবং তাদের স্বার্থ রক্ষা করবে।

উল্লেখ্য, গত ২৭ এপ্রিল, ২০২২-এ, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা লিথুয়ানিয়ায় একটি নতুন ভারতীয় মিশন খোলার অনুমোদন দিয়েছে। সেই বৈঠকের সময়, কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা বলেছিল, “ভিলনিয়াসে একটি নতুন ভারতীয় মিশন খোলার সিদ্ধান্ত ছিল আমাদের জাতীয় অগ্রাধিকার বা ‘সবকা সাথ সবকা বিকাশ’ প্রবৃদ্ধি এবং উন্নয়নের জন্য একটি অগ্রসর পদক্ষেপ। ভারতের কূটনৈতিক উপস্থিতি বৃদ্ধি করবে, অন্যান্য বিষয়ের সাথে সাথে, ভারতীয় কোম্পানিগুলির জন্য বাজারে প্রবেশাধিকার প্রদান করে এবং পণ্য ও পরিষেবাগুলির ভারতীয় রপ্তানিকে শক্তিশালী করে। আমাদের আত্মনির্ভর ভারত বা আত্মনির্ভর ভারতের লক্ষ্যের সাথে সামঞ্জস্য রেখে দেশীয় উৎপাদন ও কর্মসংস্থান বাড়ানোর ক্ষেত্রে এটি সরাসরি প্রভাব ফেলবে।”

প্রসঙ্গত, ১৯৯১ সালের ৭ সেপ্টেম্বর ভারত লিথুয়ানিয়াকে স্বীকৃতি দেয় (লাটভিয়া এবং এস্তোনিয়ার অন্যান্য বাল্টিক রাজ্যের সাথে)। দেশটি সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের সদস্য। ১৯৯২ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি লিথুয়ানিয়ার সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপিত হয়। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক