০১:০৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

অরুণাচলে চীনা আগ্রাসন, ভারতের একহাত

ভারত ও চীনের মধ্যে এবার নামকরণ বিতর্ক। কারণ, অরুণাচল প্রদেশের ১১টি জায়গার চীনা নাম রেখেছে বেজিং। এমনিতেই অরুণাচলকেই তাদের জায়গা বলে দাবি করে চীন। তারা ভারতের উত্তরপূর্বের এই রাজ্যের নাম দিয়েছে সাউথ টিবেট বা দক্ষিণ তিব্বত।

গত ১ এপ্রিল চীনের সিভিল অ্যাফেয়ার্স মন্ত্রণালয় জানায় যে, সাউথ টিবেটের  কিছু ভৌগলিক নামকে স্ট্যান্ডার্ডাইজড করা হলো। এর মধ্যে আছে পাহাড়চুড়ো, নদী, আবাসিক এলাকা ও শহর।

এরপরই ভারত জানিয়ে দেয়, অরুণাচলের কোনো জায়গা বা কোনো কিছুর নাম দেয়ার কোনো অধিকার চীনের নেই। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অরিন্দম বাগচী বলেছেন, চীন আগেও এই ধরনের কাজ করার চেষ্টা করেছে। ভারত এই প্রয়াস সরাসরি খারিজ করে দিচ্ছে।

অরিন্দম বলেছেন, অরুণাচল ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ এবং তা কোনোদিন ভারতের থেকে আলাদা হবে না। নাম পরিবর্তন করার চেষ্টা এই প্রকৃত অবস্থানের বদল ঘটায় না।

২০১৭ সালে দলাই লামা অরুণাচল প্রদেশ সফরে গিয়েছিলেন। তখন চীন অরুণাচলের ছয়টি জেলার নামকরণ করে। গত ডিসেম্বরে তারা ১৫টি জায়গার নামকরণ করেছিল। ভারত তখনো এই নাম খারিজ করে দেয় এবং প্রবল প্রতিবাদ জানায়। এবার তারা ১১টি জায়গার নামকরণ করেছে।

লাদাখের মতো অরুণাচলেও প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর অনেক জায়গায় ভারত ও চীনের সেনারা মুখোমুখি দাঁড়িয়ে আছে। গত ডিসেম্বরে দুই দেশের সেনার মধ্যে তাওয়াংয়ে সংঘর্ষ হয়েছে। এখানে দুই দেশের সেনার মধ্যে যথেষ্ট উত্তেজনা রয়েছে। এই পরিস্থিতিতে নামকরণ বিতর্ক নিয়ে দুই দেশের বিরোধ সামনে এলো। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

অরুণাচলে চীনা আগ্রাসন, ভারতের একহাত

প্রকাশ: ০৯:৫৪:০৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৬ এপ্রিল ২০২৩

ভারত ও চীনের মধ্যে এবার নামকরণ বিতর্ক। কারণ, অরুণাচল প্রদেশের ১১টি জায়গার চীনা নাম রেখেছে বেজিং। এমনিতেই অরুণাচলকেই তাদের জায়গা বলে দাবি করে চীন। তারা ভারতের উত্তরপূর্বের এই রাজ্যের নাম দিয়েছে সাউথ টিবেট বা দক্ষিণ তিব্বত।

গত ১ এপ্রিল চীনের সিভিল অ্যাফেয়ার্স মন্ত্রণালয় জানায় যে, সাউথ টিবেটের  কিছু ভৌগলিক নামকে স্ট্যান্ডার্ডাইজড করা হলো। এর মধ্যে আছে পাহাড়চুড়ো, নদী, আবাসিক এলাকা ও শহর।

এরপরই ভারত জানিয়ে দেয়, অরুণাচলের কোনো জায়গা বা কোনো কিছুর নাম দেয়ার কোনো অধিকার চীনের নেই। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অরিন্দম বাগচী বলেছেন, চীন আগেও এই ধরনের কাজ করার চেষ্টা করেছে। ভারত এই প্রয়াস সরাসরি খারিজ করে দিচ্ছে।

অরিন্দম বলেছেন, অরুণাচল ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ এবং তা কোনোদিন ভারতের থেকে আলাদা হবে না। নাম পরিবর্তন করার চেষ্টা এই প্রকৃত অবস্থানের বদল ঘটায় না।

২০১৭ সালে দলাই লামা অরুণাচল প্রদেশ সফরে গিয়েছিলেন। তখন চীন অরুণাচলের ছয়টি জেলার নামকরণ করে। গত ডিসেম্বরে তারা ১৫টি জায়গার নামকরণ করেছিল। ভারত তখনো এই নাম খারিজ করে দেয় এবং প্রবল প্রতিবাদ জানায়। এবার তারা ১১টি জায়গার নামকরণ করেছে।

লাদাখের মতো অরুণাচলেও প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর অনেক জায়গায় ভারত ও চীনের সেনারা মুখোমুখি দাঁড়িয়ে আছে। গত ডিসেম্বরে দুই দেশের সেনার মধ্যে তাওয়াংয়ে সংঘর্ষ হয়েছে। এখানে দুই দেশের সেনার মধ্যে যথেষ্ট উত্তেজনা রয়েছে। এই পরিস্থিতিতে নামকরণ বিতর্ক নিয়ে দুই দেশের বিরোধ সামনে এলো। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক