০১:০৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশের রেলবহরে ভারতের ২০ লোকোমোটিভ

বাংলাদেশকে ডিজেল চালিত ২০টি ব্রডগেজ লোকোমোটিভ (ইঞ্জিন) অনুদান হিসেবে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল ভারত। সেই প্রতিশ্রুতি মোতাবেক ওই ২০টি লোকমোটিভ মঙ্গলবার (২৩ মে) বিকেলে দর্শনা স্থলবন্দর দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। এরমধ্য দিয়ে বাংলাদেশের রেলবহরে যুক্ত হলো ২০টি ব্রডগেজ লোকোমোটিভ।

এর আগে ভারত সরকার গত বছরের ডিসেম্বর মাসেই লোকোমোটিভগুলো বুঝে নেওয়ার জন্য অনুরোধ জানায় বাংলাদেশ রেলওয়েকে। কিন্তু প্রক্রিয়াগত কিছু বিষয়ের জটিলতার কারণে সেগুলো দেশে আসেনি এতদিন। অবশেষে ২৩ মে বিকেলে আনুষ্ঠানিকভাবে ওই ২০টি লোকোমোটিভ বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করল ভারত।

লোকোমোটিভ নম্বর হচ্ছে— ১১৫৪৫, ১১৪০৩, ১১৪৪১, ১১৫৪৭, ১১৫৭২, ১১৫৩৫, ১১৫৩৮, ১১৫৪৮, ১১৫৬৮, ১১৪১২, ১১৫৮১, ১১৪১৯, ১১৪২০, ১১৪২২, ১১৪৮২, ১১৪৯৪, ১১৩৬৯, ১১৩৭৮, ১১৩৭৯ এবং ১১৩৩৬। লোকমোটিভগুলোর হর্স পাওয়ার ৩ হাজার ৩০০, অ্যাক্সেল লোড ১৯.৫ টন ও গড় বয়স ৮-১০ বছর।

হস্তান্তর উপলক্ষ্যে রাজধানীর রেলভবনে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন রেলপথমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। অন্যদিকে অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে নয়া দিল্লির রেলভবন থেকে যুক্ত হন রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব।

রেলভবন অনুষ্ঠা‌নে বি‌শেষ অ‌তি‌থি হি‌সে‌বে উপ‌স্থিত ছি‌লেন বাংলা‌দে‌শে নিযুক্ত ভারতীয় হাইক‌মিশনার প্রণয় কুমার ভার্মা। এ সময় উভয় দে‌শের রেলপথ মন্ত্রণালয় ও রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপ‌স্থিত ছি‌লেন।

এছাড়া দর্শনা রেল স্টেশন থেকে অনলাইনে যুক্ত ছিলেন বাংলাদেশের পশ্চিম রেলওয়ের জেনারেল ম্যানেজার অসীম কুমার তালুকদার। গেদ রেলওয়ে স্টেশন থেকে অনলাইনে যুক্ত ছিলেন ভারতের রেলওয়ে কর্মকর্তারা।

রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, ভারত বাংলা‌দে‌শের সম্পর্ক র‌ক্তের, আত্মার। স্বাধীনতা অর্জনে ভার‌তে অবদান আমরা কখনো ভুলিনি, ভুল‌বোও না। ভারত আমা‌দের উন্নয়‌নে সহায়ক। তাদের অর্থায়‌নে বহু উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন হচ্ছে। রে‌ল উন্নয়‌নে ভার‌তের ভূ‌মিকাও অনন্য। ভারত এ পর্যন্ত ৩০ লো‌কো‌মো‌টিভ বিনামূ‌ল্যে উপহার হি‌সে‌বে বাংলা‌দেশ‌কে দি‌য়ে‌ছে, যা বি‌শ্বে অনন্য-অসাধারণ। আমরা তা‌দের কা‌ছে ঋ‌ণী হ‌য়ে থাকলাম।

বাংলাদেশ ও ভারতের দুই রেলমন্ত্রীদের মধ্যে গত বছরের ১ জুলাই অনুষ্ঠিত সভায় বাংলাদেশ রেলওয়েকে ২০টি ব্রডগেজ লোকোমোটিভ অনুদান হিসেবে প্রদানের বিষয়ে অনুরোধ জানানো হয়।

ওই বছরের ২৯-৩১ আগস্ট ভারতের নয়াদিল্লির রেলভবনে অনুষ্ঠিত আন্তঃসরকার রেলওয়ে (আইজিআরএম) সভায় বাংলাদেশ রেলওয়েকে ২০টি ব্রডগেজ লোকমোটিভ অনুদান হিসেবে দেওয়ার বিষয়ে দেশটির সরকার দ্রুত ব্যবস্থা নেবে বলে সিদ্ধান্ত হয়। তার পরিপ্রেক্ষিতে এসব লোকমোটিভ এলো।

ভারত সরকার গত বছরের ডিসেম্বর মাসেই লোকোমোটিভগুলো বুঝে নেওয়ার অনুরোধ জানায় বাংলাদেশ রেলওয়েকে। এর আগেও ২০২০ সালে ভারত থেকে ১০টি ব্রডগেজ লোকমোটিভ অনুদান হিসেবে পেয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। সেসব লোকমোটিভ বর্তমানে দেশের পশ্চিমাঞ্চলের রুটে চলাচল করছে।  খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

বাংলাদেশের রেলবহরে ভারতের ২০ লোকোমোটিভ

প্রকাশ: ০৫:০৭:৪৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ মে ২০২৩

বাংলাদেশকে ডিজেল চালিত ২০টি ব্রডগেজ লোকোমোটিভ (ইঞ্জিন) অনুদান হিসেবে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল ভারত। সেই প্রতিশ্রুতি মোতাবেক ওই ২০টি লোকমোটিভ মঙ্গলবার (২৩ মে) বিকেলে দর্শনা স্থলবন্দর দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। এরমধ্য দিয়ে বাংলাদেশের রেলবহরে যুক্ত হলো ২০টি ব্রডগেজ লোকোমোটিভ।

এর আগে ভারত সরকার গত বছরের ডিসেম্বর মাসেই লোকোমোটিভগুলো বুঝে নেওয়ার জন্য অনুরোধ জানায় বাংলাদেশ রেলওয়েকে। কিন্তু প্রক্রিয়াগত কিছু বিষয়ের জটিলতার কারণে সেগুলো দেশে আসেনি এতদিন। অবশেষে ২৩ মে বিকেলে আনুষ্ঠানিকভাবে ওই ২০টি লোকোমোটিভ বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করল ভারত।

লোকোমোটিভ নম্বর হচ্ছে— ১১৫৪৫, ১১৪০৩, ১১৪৪১, ১১৫৪৭, ১১৫৭২, ১১৫৩৫, ১১৫৩৮, ১১৫৪৮, ১১৫৬৮, ১১৪১২, ১১৫৮১, ১১৪১৯, ১১৪২০, ১১৪২২, ১১৪৮২, ১১৪৯৪, ১১৩৬৯, ১১৩৭৮, ১১৩৭৯ এবং ১১৩৩৬। লোকমোটিভগুলোর হর্স পাওয়ার ৩ হাজার ৩০০, অ্যাক্সেল লোড ১৯.৫ টন ও গড় বয়স ৮-১০ বছর।

হস্তান্তর উপলক্ষ্যে রাজধানীর রেলভবনে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন রেলপথমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। অন্যদিকে অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে নয়া দিল্লির রেলভবন থেকে যুক্ত হন রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব।

রেলভবন অনুষ্ঠা‌নে বি‌শেষ অ‌তি‌থি হি‌সে‌বে উপ‌স্থিত ছি‌লেন বাংলা‌দে‌শে নিযুক্ত ভারতীয় হাইক‌মিশনার প্রণয় কুমার ভার্মা। এ সময় উভয় দে‌শের রেলপথ মন্ত্রণালয় ও রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপ‌স্থিত ছি‌লেন।

এছাড়া দর্শনা রেল স্টেশন থেকে অনলাইনে যুক্ত ছিলেন বাংলাদেশের পশ্চিম রেলওয়ের জেনারেল ম্যানেজার অসীম কুমার তালুকদার। গেদ রেলওয়ে স্টেশন থেকে অনলাইনে যুক্ত ছিলেন ভারতের রেলওয়ে কর্মকর্তারা।

রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, ভারত বাংলা‌দে‌শের সম্পর্ক র‌ক্তের, আত্মার। স্বাধীনতা অর্জনে ভার‌তে অবদান আমরা কখনো ভুলিনি, ভুল‌বোও না। ভারত আমা‌দের উন্নয়‌নে সহায়ক। তাদের অর্থায়‌নে বহু উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন হচ্ছে। রে‌ল উন্নয়‌নে ভার‌তের ভূ‌মিকাও অনন্য। ভারত এ পর্যন্ত ৩০ লো‌কো‌মো‌টিভ বিনামূ‌ল্যে উপহার হি‌সে‌বে বাংলা‌দেশ‌কে দি‌য়ে‌ছে, যা বি‌শ্বে অনন্য-অসাধারণ। আমরা তা‌দের কা‌ছে ঋ‌ণী হ‌য়ে থাকলাম।

বাংলাদেশ ও ভারতের দুই রেলমন্ত্রীদের মধ্যে গত বছরের ১ জুলাই অনুষ্ঠিত সভায় বাংলাদেশ রেলওয়েকে ২০টি ব্রডগেজ লোকোমোটিভ অনুদান হিসেবে প্রদানের বিষয়ে অনুরোধ জানানো হয়।

ওই বছরের ২৯-৩১ আগস্ট ভারতের নয়াদিল্লির রেলভবনে অনুষ্ঠিত আন্তঃসরকার রেলওয়ে (আইজিআরএম) সভায় বাংলাদেশ রেলওয়েকে ২০টি ব্রডগেজ লোকমোটিভ অনুদান হিসেবে দেওয়ার বিষয়ে দেশটির সরকার দ্রুত ব্যবস্থা নেবে বলে সিদ্ধান্ত হয়। তার পরিপ্রেক্ষিতে এসব লোকমোটিভ এলো।

ভারত সরকার গত বছরের ডিসেম্বর মাসেই লোকোমোটিভগুলো বুঝে নেওয়ার অনুরোধ জানায় বাংলাদেশ রেলওয়েকে। এর আগেও ২০২০ সালে ভারত থেকে ১০টি ব্রডগেজ লোকমোটিভ অনুদান হিসেবে পেয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। সেসব লোকমোটিভ বর্তমানে দেশের পশ্চিমাঞ্চলের রুটে চলাচল করছে।  খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক