০৯:৩৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

পুতিনের সাথে মোদীর ফোনালাপ

ওয়াগনার বিদ্রোহ নিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে কথা বলেছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। শুক্রবার সন্ধ্যায় টেলিফোনে দুই রাষ্ট্রপ্রধানের কথা হয়েছে। ক্রেমলিন সূত্রে জানানো হয়েছে, ইউক্রেন যুদ্ধ ঘিরে উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে মোদী-পুতিন আলোচনা হয়েছে।

মস্কো সূত্রে জানা গেছে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদী এবং রুশ প্রেসিডেন্টের মধ্যে সাম্প্রতিক ‘ওয়াগনার’ বিদ্রোহের বিষয়েও আলাপ আলোচনা হয়েছে।

ক্রেমলিনের দাবি, তাদের মধ্যে আলোচনার সময় মোদী রাশিয়ার প্রশংসা করেছেন। গত শনিবার ‘ওয়াগনার’ বাহিনীর মধ্যে বিদ্রোহ মাথা চাড়া দিলে মস্কো যেভাবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রেণ করেছে তার প্রশংসা করেছেন মোদী— এমনটাই দাবি ক্রেমলিনের।

ক্রেমলিন প্রকাশিত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ২৪ জুন রাশিয়ায় যা ঘটেছে তার প্রেক্ষিতে রুশ নেতৃত্বের নির্দিষ্ট পদক্ষেপে যেভাবে আইনশৃঙ্খলা রুশ নাগরিকদের নিরাপত্তা রক্ষা করা গিয়েছে তার প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন মোদী। ভাড়াটে যোদ্ধাবাহিনী শনিবার মস্কো দখলের কথা  প্রকাশ্যে জানানোর পরেই ক্রেমলিনের তরফে প্রেস বিবৃতিতে প্রিগোজিন-সহ বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা দায়ের করার কথা জানানো হয়েছিল।

প্রেসিডেন্ট পুতিন জাতির উদ্দেশে ভাষণে তার একদা ঘনিষ্ঠ ‘ওয়াগনার’ বাহিনীর প্রধানকে ‘বিশ্বাসঘাতক’ বলে চিহ্নিত করেছিলেন। পাশাপাশি, প্রিগোজিনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে বিদ্রোহ দমনে কড়া পদক্ষেপের কথা জানান তিনি।

এরপর ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই পরিস্থিতির নাটকীয় বদল ঘটে। ‘রণে ভঙ্গ’ দিয়ে ‘অজ্ঞাতবাসে’ যাওয়া প্রিগোজিন অডিও বার্তায় দাবি করেছেন, বিদ্রোহ নয়, প্রেসিডেন্ট পুতিনের সরকার এবং তার সেনার আচরণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে পথে নেমেছিল ‘ওয়াগনার’ বাহিনী।

এই পরিস্থিতিতে রুশ গোয়েন্দা সংস্থা ‘ফেডারেল সিকিউরিটি সার্ভিস’ (এফএসবি) বলেছে, তদন্তে দেখা গিয়েছে যে বিদ্রোহে জড়িতরা অপরাধমূলক কার্যকলাপ বন্ধ করে দিয়েছেন। এই পরিস্থিতিতে তাই তাদের বিরুদ্ধে আইনি প্রক্রিয়া বন্ধ করা হয়। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

পুতিনের সাথে মোদীর ফোনালাপ

প্রকাশ: ০৯:৫১:২৬ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩০ জুন ২০২৩

ওয়াগনার বিদ্রোহ নিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে কথা বলেছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। শুক্রবার সন্ধ্যায় টেলিফোনে দুই রাষ্ট্রপ্রধানের কথা হয়েছে। ক্রেমলিন সূত্রে জানানো হয়েছে, ইউক্রেন যুদ্ধ ঘিরে উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে মোদী-পুতিন আলোচনা হয়েছে।

মস্কো সূত্রে জানা গেছে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদী এবং রুশ প্রেসিডেন্টের মধ্যে সাম্প্রতিক ‘ওয়াগনার’ বিদ্রোহের বিষয়েও আলাপ আলোচনা হয়েছে।

ক্রেমলিনের দাবি, তাদের মধ্যে আলোচনার সময় মোদী রাশিয়ার প্রশংসা করেছেন। গত শনিবার ‘ওয়াগনার’ বাহিনীর মধ্যে বিদ্রোহ মাথা চাড়া দিলে মস্কো যেভাবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রেণ করেছে তার প্রশংসা করেছেন মোদী— এমনটাই দাবি ক্রেমলিনের।

ক্রেমলিন প্রকাশিত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ২৪ জুন রাশিয়ায় যা ঘটেছে তার প্রেক্ষিতে রুশ নেতৃত্বের নির্দিষ্ট পদক্ষেপে যেভাবে আইনশৃঙ্খলা রুশ নাগরিকদের নিরাপত্তা রক্ষা করা গিয়েছে তার প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন মোদী। ভাড়াটে যোদ্ধাবাহিনী শনিবার মস্কো দখলের কথা  প্রকাশ্যে জানানোর পরেই ক্রেমলিনের তরফে প্রেস বিবৃতিতে প্রিগোজিন-সহ বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা দায়ের করার কথা জানানো হয়েছিল।

প্রেসিডেন্ট পুতিন জাতির উদ্দেশে ভাষণে তার একদা ঘনিষ্ঠ ‘ওয়াগনার’ বাহিনীর প্রধানকে ‘বিশ্বাসঘাতক’ বলে চিহ্নিত করেছিলেন। পাশাপাশি, প্রিগোজিনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে বিদ্রোহ দমনে কড়া পদক্ষেপের কথা জানান তিনি।

এরপর ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই পরিস্থিতির নাটকীয় বদল ঘটে। ‘রণে ভঙ্গ’ দিয়ে ‘অজ্ঞাতবাসে’ যাওয়া প্রিগোজিন অডিও বার্তায় দাবি করেছেন, বিদ্রোহ নয়, প্রেসিডেন্ট পুতিনের সরকার এবং তার সেনার আচরণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে পথে নেমেছিল ‘ওয়াগনার’ বাহিনী।

এই পরিস্থিতিতে রুশ গোয়েন্দা সংস্থা ‘ফেডারেল সিকিউরিটি সার্ভিস’ (এফএসবি) বলেছে, তদন্তে দেখা গিয়েছে যে বিদ্রোহে জড়িতরা অপরাধমূলক কার্যকলাপ বন্ধ করে দিয়েছেন। এই পরিস্থিতিতে তাই তাদের বিরুদ্ধে আইনি প্রক্রিয়া বন্ধ করা হয়। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক