১২:৫৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দিনে কতবার আলিঙ্গন করা জরুরি?

মানসিক চাপ কমানো থেকে শুরু করে আত্মিক সংযোগ তৈরি, একটি আলিঙ্গন থেকে হতে পারে এমন সুখকর অনেক কিছু। আবেগ, অনুভূতি, অনেক না বলা কথার বিকল্প হতে পারে আলিঙ্গন। শুধু ভালোবাসার মানুষের ক্ষেত্রেই নয়, পরিবারের সদস্য কিংবা বন্ধুবান্ধবের সঙ্গে আলিঙ্গনে রয়েছে নানা উপকারিতা। আলিঙ্গন শুধু ভালোলাগা প্রকাশেরই উপায় নয়, এটি শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী। আলিঙ্গনের কিছু গুরুত্বপূর্ণ উপকারিতা সম্পর্কে সবিস্তারে জানা যাক–

মানসিক চাপ কমায়: আলিঙ্গন করলে ‘হ্যাপি হরমোন’ নামে পরিচিত অক্সিটোসিন নিঃসৃত হয়, যা মনকে শান্ত ও চাপমুক্ত রাখে। গবেষণায় দেখা গেছে আলিঙ্গন রক্তচাপ কমায় এবং হার্ট ভালো রাখে। এ ছাড়া আলিঙ্গন স্ট্রেস হরমোন করটিসলের মাত্রা হ্রাস করে। এর ফলে এমনকি উভয়েরই মানসিক চাপ কমে যেতে পারে।

আনন্দ বাড়ায়: অক্সিটোসিন আনন্দ ও সুস্থতার অনুভূতিও বাড়ায়। এ ছাড়া আলিঙ্গন শরীরের প্রাকৃতিক ব্যথা সারানোর উপাদান এন্ডোরফিন নিঃসৃত করে, যা মেজাজ ভালো করে ও হতাশা কমায়। আলিঙ্গন সম্পর্ককে মজবুত করতে পারে এবং জীবনকে আরও উপভোগ্য করে তুলতে পারে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়: গবেষণায় দেখা গেছে, নিয়মিত আলিঙ্গন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে পারে। কারণ এটি শ্বেত রক্তকণিকার কার্যকারিতা বাড়িয়ে দেয়, যা সংক্রমণ প্রতিরোধে সাহায্য করে।

হার্ট ভালো রাখে: আলিঙ্গন রক্তচাপ ও মানসিক চাপ কমিয়ে হার্ট ভালো রাখে। হার্ট রেট বেশ ভালো রাখে। ফলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে।

একাকিত্ব দূর করে: কাছের মানুষদের থেকে যত দূরে সরে যাবেন, নিজেকে তত বেশি নিঃসঙ্গ লাগবে। আলিঙ্গন মনে করিয়ে দেয়, আপনি নিরাপদ, অন্যের কাছে প্রিয় এবং একা নন। তাই একাকিত্ব দূর করতে আলিঙ্গনের অভ্যাস করুন।

সহানুভূতি বাড়ায়: গবেষণায় দেখা গেছে যারা বেশি আলিঙ্গন করে তারা সাধারণত অন্যদের প্রতি বেশি সহানুভূতিশীল হয়।

দিনে কতবার আলিঙ্গন করা ভালো
প্রতিদিনই আলিঙ্গনের দরকার আমাদের জীবনে। এখন প্রশ্ন হলো, দিনে কতবার আলিঙ্গন করা ভালো। এর উত্তর দিয়েছেন ফ্যামিলি থেরাপি নিয়ে কাজ করার জন্য সুপরিচিত মার্কিন থেরাপিস্ট ভার্জিনিয়া স্যাটির। তিনি মনে করেন দৈনিক গড়ে অন্তত চারবার আলিঙ্গন প্রয়োজন। তবে ৮ থেকে ১২ বার আলিঙ্গনেও ক্ষতি নেই।

ভার্জিনিয়া স্যাটির বলেন, ‘সাধারণত আমাদের প্রতিদিন অন্তত চারবার আলিঙ্গন করা দরকার। তবে মেইটেন্যান্স থেরাপির জন্য দিনে আলিঙ্গন দরকার ৮ বার। আর গ্রোথ থেরাপির জন্য প্রতিদিন দরকার ১২ বার আলিঙ্গন।’

কতক্ষণ আলিঙ্গন করবেন
কাছের মানুষের স্পর্শে মানসিক চাপ, উদ্বেগ, বিষণ্নতাসহ মন খারাপের সব উপকরণ দূর হয়ে যায়। তবে অনেকের প্রশ্ন, কতক্ষণ আলিঙ্গন করা উচিত। ব্রিটিশ গবেষকদের মতে, ৫ থেকে ১০ সেকেন্ডের আলিঙ্গনই আদর্শ। লন্ডনের গোল্ডস্মিথ ইউনিভার্সিটির গবেষকেরা জানান, ছোট অর্থাৎ ১ সেকেন্ড মতো আলিঙ্গনের তুলনায় দীর্ঘ আলিঙ্গন তাৎক্ষণিক আনন্দ দেয়। ফলে মানসিক চাপ কমে যায়। জীবন উপভোগ্য হয়ে ওঠে ভালোবাসায়।

তথ্যসূত্র: হেলথলাইন, ডেইলি মেইল

ট্যাগ:

দিনে কতবার আলিঙ্গন করা জরুরি?

প্রকাশ: ০৭:০১:২৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

মানসিক চাপ কমানো থেকে শুরু করে আত্মিক সংযোগ তৈরি, একটি আলিঙ্গন থেকে হতে পারে এমন সুখকর অনেক কিছু। আবেগ, অনুভূতি, অনেক না বলা কথার বিকল্প হতে পারে আলিঙ্গন। শুধু ভালোবাসার মানুষের ক্ষেত্রেই নয়, পরিবারের সদস্য কিংবা বন্ধুবান্ধবের সঙ্গে আলিঙ্গনে রয়েছে নানা উপকারিতা। আলিঙ্গন শুধু ভালোলাগা প্রকাশেরই উপায় নয়, এটি শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী। আলিঙ্গনের কিছু গুরুত্বপূর্ণ উপকারিতা সম্পর্কে সবিস্তারে জানা যাক–

মানসিক চাপ কমায়: আলিঙ্গন করলে ‘হ্যাপি হরমোন’ নামে পরিচিত অক্সিটোসিন নিঃসৃত হয়, যা মনকে শান্ত ও চাপমুক্ত রাখে। গবেষণায় দেখা গেছে আলিঙ্গন রক্তচাপ কমায় এবং হার্ট ভালো রাখে। এ ছাড়া আলিঙ্গন স্ট্রেস হরমোন করটিসলের মাত্রা হ্রাস করে। এর ফলে এমনকি উভয়েরই মানসিক চাপ কমে যেতে পারে।

আনন্দ বাড়ায়: অক্সিটোসিন আনন্দ ও সুস্থতার অনুভূতিও বাড়ায়। এ ছাড়া আলিঙ্গন শরীরের প্রাকৃতিক ব্যথা সারানোর উপাদান এন্ডোরফিন নিঃসৃত করে, যা মেজাজ ভালো করে ও হতাশা কমায়। আলিঙ্গন সম্পর্ককে মজবুত করতে পারে এবং জীবনকে আরও উপভোগ্য করে তুলতে পারে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়: গবেষণায় দেখা গেছে, নিয়মিত আলিঙ্গন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে পারে। কারণ এটি শ্বেত রক্তকণিকার কার্যকারিতা বাড়িয়ে দেয়, যা সংক্রমণ প্রতিরোধে সাহায্য করে।

হার্ট ভালো রাখে: আলিঙ্গন রক্তচাপ ও মানসিক চাপ কমিয়ে হার্ট ভালো রাখে। হার্ট রেট বেশ ভালো রাখে। ফলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে।

একাকিত্ব দূর করে: কাছের মানুষদের থেকে যত দূরে সরে যাবেন, নিজেকে তত বেশি নিঃসঙ্গ লাগবে। আলিঙ্গন মনে করিয়ে দেয়, আপনি নিরাপদ, অন্যের কাছে প্রিয় এবং একা নন। তাই একাকিত্ব দূর করতে আলিঙ্গনের অভ্যাস করুন।

সহানুভূতি বাড়ায়: গবেষণায় দেখা গেছে যারা বেশি আলিঙ্গন করে তারা সাধারণত অন্যদের প্রতি বেশি সহানুভূতিশীল হয়।

দিনে কতবার আলিঙ্গন করা ভালো
প্রতিদিনই আলিঙ্গনের দরকার আমাদের জীবনে। এখন প্রশ্ন হলো, দিনে কতবার আলিঙ্গন করা ভালো। এর উত্তর দিয়েছেন ফ্যামিলি থেরাপি নিয়ে কাজ করার জন্য সুপরিচিত মার্কিন থেরাপিস্ট ভার্জিনিয়া স্যাটির। তিনি মনে করেন দৈনিক গড়ে অন্তত চারবার আলিঙ্গন প্রয়োজন। তবে ৮ থেকে ১২ বার আলিঙ্গনেও ক্ষতি নেই।

ভার্জিনিয়া স্যাটির বলেন, ‘সাধারণত আমাদের প্রতিদিন অন্তত চারবার আলিঙ্গন করা দরকার। তবে মেইটেন্যান্স থেরাপির জন্য দিনে আলিঙ্গন দরকার ৮ বার। আর গ্রোথ থেরাপির জন্য প্রতিদিন দরকার ১২ বার আলিঙ্গন।’

কতক্ষণ আলিঙ্গন করবেন
কাছের মানুষের স্পর্শে মানসিক চাপ, উদ্বেগ, বিষণ্নতাসহ মন খারাপের সব উপকরণ দূর হয়ে যায়। তবে অনেকের প্রশ্ন, কতক্ষণ আলিঙ্গন করা উচিত। ব্রিটিশ গবেষকদের মতে, ৫ থেকে ১০ সেকেন্ডের আলিঙ্গনই আদর্শ। লন্ডনের গোল্ডস্মিথ ইউনিভার্সিটির গবেষকেরা জানান, ছোট অর্থাৎ ১ সেকেন্ড মতো আলিঙ্গনের তুলনায় দীর্ঘ আলিঙ্গন তাৎক্ষণিক আনন্দ দেয়। ফলে মানসিক চাপ কমে যায়। জীবন উপভোগ্য হয়ে ওঠে ভালোবাসায়।

তথ্যসূত্র: হেলথলাইন, ডেইলি মেইল