০১:৫২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

থ্রিলারের শেষ হাসি রোহিতদের; বিদায় শঙ্কা বাবরদের

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে প্রথমবার ভারতকে অলআউট করেছে পাকিস্তান, তাও মাত্র ১১৯ রানে। কিন্তু সেই রান করতে গিয়েই ঘাম ছুটলো তাদের ব্যাটারদের। পারেনি লক্ষ্য ছুঁতে। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর বিপক্ষে টানা দুই বিশ্বকাপে হারের তিক্ত স্বাদ পেলো পাকিস্তান। লো স্কোরিং ম্যাচে রোমাঞ্চ ছড়িয়ে ৬ রানে ভারত হারালো তাদেরকে।

টানা দুই ম্যাচ হারের ধাক্কা খেলো পাকিস্তান। ভারতের বিপক্ষে তাদের বাজে রেকর্ড অব্যাহত থাকলো। অথচ ১০ ওভার শেষেও জয়ের পাল্লা তাদের দিকে ভারী ছিল। হাতে ছিল ৯ উইকেট, আস্কিং রেট প্রায় ৬। কিন্তু আনপ্রেডিক্টেবল পাকিস্তান দেখলো আরেকটি বিস্ময়কর হার।

বাবর আজম ও মোহাম্মদ রিজওয়ান প্রথম দুই ওভারে ১৫ রান তুলে ভালো শুরুর আভাস দেন।

পঞ্চম ওভারে যশপ্রীত বুমরার বলে বাবরকে দারুণ ক্যাচে ফেরান সূর্যকুমার যাদব। ভাঙে ২৬ রানের জুটি। উসমান খানকে নিয়ে রিজওয়ান সতর্ক ব্যাটিংয়ে পাকিস্তানকে পথ দেখাতে থাকেন। ১০ ওভারে ১ উইকেটে ৫৭ রান তোলে পাকিস্তান।

অক্ষর প্যাটেল বল হাতে নিয়েই ভেঙে দেন ২৮ রানের জুটি। উসমানের (১৩) বিরুদ্ধে এলবিডব্লিউর রিভিউ নিয়ে সফল হয় ভারত। হার্দিক পান্ডিয়ার বলে ফখর জামানের (১৩) দুর্দান্ত ক্যাচ নিয়ে ভারতকে উচ্ছ্বাসে ভাসান রিশাভ পান্ত।

সবকিছুই ঠিকঠাক ছিল। শেষ ৬ ওভারে ৪০ রান দরকার ছিল। রিজওয়ান আশার আলো হয়ে জ্বলছিলেন। কিন্তু বুমরার দুর্দান্ত ডেলিভারিতে তিনি বোল্ড হলে পথ হারায় পাকিস্তান। ৪৪ বলে ৩১ রান করেন এই উইকেটকিপার ব্যাটার।

এরপর হার্দিকের বলে শাদাব খানকেও (৪) দারুণ ক্যাচে প্যাভিলিয়নে পাঠান পান্ত। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারানোর পাশাপাশি প্রয়োজনীয় রান রেট বাড়তে থাকে। চাপে পড়ে পাকিস্তান। ইফতিখার আহমেদকে (৫) আর্শদীপ সিংয়ের ক্যাচ বানান বুমরা।

শেষ ওভারে লক্ষ্য দাঁড়ায় ১৮ রানের। আর্শদীপ বল হাতে নেন। প্রথম বলেই ইমাদ ওয়াসিম (১৫) ক্যাচ দেন পান্তকে। পরের দুটি বলে সিঙ্গেল নেন নাসিম শাহ ও শাহীন আফ্রিদি। শেষের আগের দুটি বলে বাউন্ডারি মারেন নাসিম। কিন্তু ততক্ষণে দেরি হয়ে গেছে। শেষ বলে দরকার ছিল ৮ রান। হয়েছে ১ রান। ৭ উইকেটে ১১৩ রানে থামে পাকিস্তান।

চার ওভারে মাত্র ১৪ রান দিয়ে তিন উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা হয়েছেন বুমরা। দুটি উইকেট পান হার্দিক।

বৃষ্টির কারণে দেরিতে শুরু হওয়া ম্যাচে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে ভারত বিপর্যয়ের মুখোমুখি হয়। নাসিম, হারিস রউফ ও মোহাম্মদ আমিরের দুর্দান্ত বোলিংয়ে ১১৯ রানে অলআউট হয় তারা। পাকিস্তানের বিপক্ষে বিশ্বকাপে সর্বনিম্ন রান করেছিল ভারত। তাদের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪২ রান করেন পান্ত। এছাড়া দুই অঙ্কের ঘরে রান করেন কেবল অক্ষর (২০) ও রোহিত শর্মা (১৩)।

নাসিম ও হারিস সর্বোচ্চ তিনটি করে উইকেট পান। টানা দুই বলে উইকেট নেন আমির।

দুই ম্যাচে দুটি জিতে ৪ পয়েন্ট নিয়ে ‘এ’ গ্রুপের শীর্ষে ভারত। তাদের সমান পয়েন্ট পেলেও রান রেটে পিছিয়ে থেকে দুইয়ে যুক্তরাষ্ট্র। কানাডা ২ পয়েন্ট নিয়ে তিনে। তারপর আছে পাকিস্তান। পাঁচ দলের গ্রুপে সবার শেষে আয়ারল্যান্ড।

ট্যাগ:

থ্রিলারের শেষ হাসি রোহিতদের; বিদায় শঙ্কা বাবরদের

প্রকাশ: ১০:৩৩:২০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১০ জুন ২০২৪

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে প্রথমবার ভারতকে অলআউট করেছে পাকিস্তান, তাও মাত্র ১১৯ রানে। কিন্তু সেই রান করতে গিয়েই ঘাম ছুটলো তাদের ব্যাটারদের। পারেনি লক্ষ্য ছুঁতে। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর বিপক্ষে টানা দুই বিশ্বকাপে হারের তিক্ত স্বাদ পেলো পাকিস্তান। লো স্কোরিং ম্যাচে রোমাঞ্চ ছড়িয়ে ৬ রানে ভারত হারালো তাদেরকে।

টানা দুই ম্যাচ হারের ধাক্কা খেলো পাকিস্তান। ভারতের বিপক্ষে তাদের বাজে রেকর্ড অব্যাহত থাকলো। অথচ ১০ ওভার শেষেও জয়ের পাল্লা তাদের দিকে ভারী ছিল। হাতে ছিল ৯ উইকেট, আস্কিং রেট প্রায় ৬। কিন্তু আনপ্রেডিক্টেবল পাকিস্তান দেখলো আরেকটি বিস্ময়কর হার।

বাবর আজম ও মোহাম্মদ রিজওয়ান প্রথম দুই ওভারে ১৫ রান তুলে ভালো শুরুর আভাস দেন।

পঞ্চম ওভারে যশপ্রীত বুমরার বলে বাবরকে দারুণ ক্যাচে ফেরান সূর্যকুমার যাদব। ভাঙে ২৬ রানের জুটি। উসমান খানকে নিয়ে রিজওয়ান সতর্ক ব্যাটিংয়ে পাকিস্তানকে পথ দেখাতে থাকেন। ১০ ওভারে ১ উইকেটে ৫৭ রান তোলে পাকিস্তান।

অক্ষর প্যাটেল বল হাতে নিয়েই ভেঙে দেন ২৮ রানের জুটি। উসমানের (১৩) বিরুদ্ধে এলবিডব্লিউর রিভিউ নিয়ে সফল হয় ভারত। হার্দিক পান্ডিয়ার বলে ফখর জামানের (১৩) দুর্দান্ত ক্যাচ নিয়ে ভারতকে উচ্ছ্বাসে ভাসান রিশাভ পান্ত।

সবকিছুই ঠিকঠাক ছিল। শেষ ৬ ওভারে ৪০ রান দরকার ছিল। রিজওয়ান আশার আলো হয়ে জ্বলছিলেন। কিন্তু বুমরার দুর্দান্ত ডেলিভারিতে তিনি বোল্ড হলে পথ হারায় পাকিস্তান। ৪৪ বলে ৩১ রান করেন এই উইকেটকিপার ব্যাটার।

এরপর হার্দিকের বলে শাদাব খানকেও (৪) দারুণ ক্যাচে প্যাভিলিয়নে পাঠান পান্ত। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারানোর পাশাপাশি প্রয়োজনীয় রান রেট বাড়তে থাকে। চাপে পড়ে পাকিস্তান। ইফতিখার আহমেদকে (৫) আর্শদীপ সিংয়ের ক্যাচ বানান বুমরা।

শেষ ওভারে লক্ষ্য দাঁড়ায় ১৮ রানের। আর্শদীপ বল হাতে নেন। প্রথম বলেই ইমাদ ওয়াসিম (১৫) ক্যাচ দেন পান্তকে। পরের দুটি বলে সিঙ্গেল নেন নাসিম শাহ ও শাহীন আফ্রিদি। শেষের আগের দুটি বলে বাউন্ডারি মারেন নাসিম। কিন্তু ততক্ষণে দেরি হয়ে গেছে। শেষ বলে দরকার ছিল ৮ রান। হয়েছে ১ রান। ৭ উইকেটে ১১৩ রানে থামে পাকিস্তান।

চার ওভারে মাত্র ১৪ রান দিয়ে তিন উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা হয়েছেন বুমরা। দুটি উইকেট পান হার্দিক।

বৃষ্টির কারণে দেরিতে শুরু হওয়া ম্যাচে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে ভারত বিপর্যয়ের মুখোমুখি হয়। নাসিম, হারিস রউফ ও মোহাম্মদ আমিরের দুর্দান্ত বোলিংয়ে ১১৯ রানে অলআউট হয় তারা। পাকিস্তানের বিপক্ষে বিশ্বকাপে সর্বনিম্ন রান করেছিল ভারত। তাদের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪২ রান করেন পান্ত। এছাড়া দুই অঙ্কের ঘরে রান করেন কেবল অক্ষর (২০) ও রোহিত শর্মা (১৩)।

নাসিম ও হারিস সর্বোচ্চ তিনটি করে উইকেট পান। টানা দুই বলে উইকেট নেন আমির।

দুই ম্যাচে দুটি জিতে ৪ পয়েন্ট নিয়ে ‘এ’ গ্রুপের শীর্ষে ভারত। তাদের সমান পয়েন্ট পেলেও রান রেটে পিছিয়ে থেকে দুইয়ে যুক্তরাষ্ট্র। কানাডা ২ পয়েন্ট নিয়ে তিনে। তারপর আছে পাকিস্তান। পাঁচ দলের গ্রুপে সবার শেষে আয়ারল্যান্ড।